ভৈরবে রাত ১২টার পর উচ্ছস্বরে মাইক বাজানো বন্ধের নির্দেশ

জয়নাল আবেদীন রিটন, ভৈরব প্রতিনিধি: কিশোরগঞ্জের ভৈরবে ধর্মীয়, সামাজিক-সাংস্কৃতিক অথবা পারিবারিক-যেকোনো অনুষ্ঠানে এখন থেকে আর উচ্চস্বরে সাউন্ডযন্ত্র বাজানো যাবে না। ওয়াজ মাহফিল বা ওরশ মোবারক অনুষ্ঠানের মাইকের সাউন্ড সীমাবদ্ধ থাকবে আয়োজনের প্যান্ডেল পর্যন্ত। সামাজিক, সাংস্কৃতিক, পূঁজা-পার্বন ও পারিবারিক অনুষ্ঠানের মাইকের সাউন্ডও থাকবে আয়োজনস্থলের মধ্যে। রাত বারটার মধ্যে অনুষ্টানের সাউন্ড সিস্টেম বন্ধ করতে হবে অনুষ্টানের আয়োজকদের। এমনকি ওয়াজ মাহফিলে বক্তারা বয়ান করবেন রাত ১২টা পর্যন্ত।

আজ সোমবার দুপুরে কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলা পরিষদ এক সভায় সর্বসম্মতভাবে এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। সভায় স্থানীয় আলেম-ওলামা পরিষদ, ইমাম পরিষদ, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দসহ উপজেলা ও পুলিশ প্রশাসনের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় উপস্থিত অতিথিরা তাদের বক্তব্যে বলেন-ধর্মীয়, সামাজিকসহ বিভিন্ন পারিবারিক অনুষ্ঠানে কিছু মানুষ উচ্চস্বরে সাউন্ড বাজিয়ে চারপাশের পরিবেশকে অস্থির করে তুলে। যাকোনো সভ্য সমাজের জন্য যা কাম্য হতে পারে না। এতে করে শিক্ষার্থী, শিশু-বৃদ্ধ ও অসুস্থ্য রোগীদের জন্য ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

অপরদিকে রাতব্যাপী চলা এইসব অনুষ্ঠানের শব্দদূষণের কারণে মানুষের ঘুমের মারাত্মক ব্যঘাত ঘটে। শিক্ষার্থীদের লেখা পড়ায় বিঘœ ঘটৈ। ঘুমের ব্যঘাতের কারণে অনেক মানুষ অসুস্থ্য হয়ে পড়েন। অল্পঘুমিয়ে পরের দিন তারা কাজ-কর্ম সঠিকভাবে করতে পারেন না। যা পরিবার, সমাজ ও রাস্ট্রের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর।

এইসব বিষয় বিবেচনায় নিয়ে সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে জানিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুবনা ফারজানা জানান, সভায় সবার মতামতের ভিত্তিতে সিদ্ধান্তগুলি নেওয়া হয়েছে। কেউ যদি এইসব সিদ্ধান্তের বাইরে যান, প্রথমে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা সিদ্ধান্তটি বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্টদের আহ্বান জানাবেন। তারপরও যদি কেউ অমান্য করেন, তবে তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসন তাৎক্ষণিক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে পরিষদের চেয়ারম্যান, বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মো: সায়দুল্লাহ মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুবনা ফারজানা, পৌরসভার মেয়র, বীরমুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট ফখরুল আলম আক্কাছ, জেলা পরিষদের প্যানেল-চেয়ারম্যান মির্জা মো: সুলায়মান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার, বীরমুক্তিযোদ্ধা মো: সিরাজ উদ্দিন, ভৈরব থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহিন, ভৈরব উপজেলা আলেম-ওলামা পরিষদের সভাপতি মুফতি মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আমিন প্রমূখ।