ভুটানের প্রধানমন্ত্রী ঢাকায়

মুজিব শতবর্ষ উদযাপন এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে তিন দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ঢাকায় পৌঁছেছেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং।

আজ মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) সকাল সাড়ে নয়টায় তাকে বহনকারী বিমান হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

বিমানবন্দরে তাকে স্বাগত জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় তাকে লাল গালিচা সংবর্ধনা দেয়া হয়।

দুই দেশের জাতীয় সঙ্গীত বাজিয়ে নেপালের রাষ্ট্রপতিকে গার্ড অব অনার জানায় সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর চৌকশ দল।

ভুটানের রাজার প্রতিনিধি হয়েই বাংলাদেশ সফর করছেন এদেশের প্রিয়জন, পরিচিত মুখ লোটে শেরিং।

তার শিক্ষা জীবনের একটি বড় সময় কাটে বাংলাদেশে। ১৯৯১ সালে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজের ২৮তম ব্যাচের শিক্ষার্থী হিসেবে লোটে শেরিং তার মেডিক্যাল শিক্ষা জীবন শুরু করেন।

১৯৯৯ সালে এমবিবিএস পাস করে ঢাকায় সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চতর প্রশিক্ষণ নিয়ে এফসিপিএস কোর্স সম্পন্ন করেন।

২০০৩ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশে ছিলেন তিনি। ২০১৮ সালে দায়িত্ব পান ভুটানের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে।

পরের বছরই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমন্ত্রণে চারদিনের বাংলাদেশ সফরে আসেন লোটে শেরিং।

ওই সফরে বাংলা নববর্ষ উদযাপন করতে নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজের বর্ণাঢ্য আয়োজেনে যোগ দেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে আয়োজিত বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ ছাড়াও

ভুটানের প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ সফরের সময় বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বিষয়াবলী আলোচনা হওয়ার কথা রয়েছে।

বাংলাদেশকে প্রথম স্বীকৃতি দেয়া দেশ ভুটান। সেই থেকে দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক বরাবরই সুন্দর।