ভাস্কর্য নিয়ে হেফাজতে ইসলামের বৈঠকের প্রস্তাব সরকারের বিবেচনাধীন

ভাস্কর্য ইস্যুতে ইসলামি দলগুলোর সঙ্গে বৈঠকের বিষয়ে সিদ্ধান্ত শিগগিরই। সন্ত্রাসের সঙ্গে আপস হিসেবে দেখছে নির্মূল কমিটি।

ভাস্কর্য ইস্যুতে হেফাজতসহ ইসলামপন্থি কয়েকটি দলের সঙ্গে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকের সময় শিগগিরই ঠিক হবে। বৈঠকে শান্তিপূর্ণ সমাধানও হবে বলে আশা করছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী। আর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন, বৈঠক নিয়ে তার কাছে কোনো নির্দেশনা এখনও আসেনি। ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি বলছে, হেফাজতের সাথে বৈঠক করলে তা হবে সন্ত্রাসের সাথে সরকারের আপস।

রাজধানীর ধোলাইপাড়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মাণাধীন ভাস্কর্যসহ, সব ভাস্কর্যের বিরুদ্ধে কয়েক সপ্তাহ ধরে নানা কর্মসূচি নিয়ে সরব হেফাজতে ইসলামসহ ইসলামপন্থি কয়েকটি দল।

পাল্টা অবস্থানে আওয়ামী লীগসহ রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, পেশাজীবীসহ বিভিন্ন সংগঠন। কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভাঙচুরের পর ব্যাপক প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে ক্ষমতাসীন দল।

এমন পরিপ্রেক্ষিতে গত বৃহস্পতিবার ভাস্কর্য ইস্যুতে আলোচনা করতে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে সরকারের কাছে লিখিত প্রস্তাব পাঠায় হেফাজতে ইসলাম। এরইমধ্যে প্রস্তাবের কপি ধর্ম ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পৌঁছেছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, আমার কাছে এখনো অফিসিয়ালি কোন চিঠি আসে নাই। প্রস্তাব দিয়েছে কাউন্টারে প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। তারা বসতে চাইলে আমরা বসবো। কিন্তু তাদের সঙ্গে আমাদের এখনো ফরমালি কোন কিছু হয়নি।

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান দুলাল বলেন,দুইদিক থেকেই শান্তিপূর্ণ সমাধান চাওয়া হচ্ছে। আমরা আশা করছি এটা নিয়ে কোন ঝামেলা হবে না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে এই বিষয়ে আলোচনা করে একটা সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি মনে করে, হেফাজতের ইসলামের মতো সন্ত্রাসী সংগঠনের সাথে সরকার কোনোভাবেই বৈঠকে রাজি হতে পারে না।

ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির বলেন, সরকারের নীতি এবং সংবিধান অনুযায়ি দেশ চলবে। এখানে কেউ ইসলামের নামে ভাস্কর্য ভাঙ্গার কথা বলবে, কাদিয়ানিদের অমুসলিম করার কথা বলবে এভাবে তো হবে না। সংবিধান দিয়েই এদেরকে নিষিদ্ধ করা যায়। আমি মনে করি না কোন অবস্থাতেই হেফাজতের সঙ্গে সরকারের কোনরকম সমঝোতা বা আলোচনার সুযোগ আছে।

ধর্ম নিয়ে রাজনীতি ও ভাস্কর্যবিরোধীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার দাবিও জানান শাহরিরার কবির।