ভারত-পাকিস্তানকে বন্ধু হিসেবে দেখতে চান মালালা

ভারত-পাকিস্তানকে চির শত্রু বললে খুব বেশি ভুল হবে না মনে হয়।

সেই জন্ম লগ্ন থেকেই দুই দেশের মধ্যে কোন না কোন ইস্যু নিয়ে বিরোধ লেগেই আছে। যুদ্ধও হয়েছে দুই দেশের মধ্যে।

প্রায়ই শোনা যায় দু’দেশের সীমান্তে গোলাবর্ষণের খবর।

এমন অবস্থায় দুই প্রতিবেশী দেশের উদ্দেশে শান্তির বার্তা দিলেন শান্তিতে নোবেল জয়ী পাকিস্তানি মালালা ইউসুফজাই।

রোববার জয়পুর সাহিত্য উৎসবে ভার্চুয়ালি যোগ দেন নোবেলজয়ী মালালা একথা বলেন।

ওই ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে মালালা আরও বলেন, “আপনি ভারতীয়, আমি পাকিস্তানি। এবং আমরা আমাদের মতো ভাল আছি।

তাহলে এত বিদ্বেষ কেন? সীমান্ত, বিভাজন এবং বিভাজনের মাধ্যমে আলাদা করে জয় করা- এসব পুরনো দর্শন এখন আর কাজ করে না। মানুষ হিসেবে আমরা সবাই শান্তিতে থাকতে চাই।

ভারত-পাকিস্তানের আসল শত্রুতো হল – দারিদ্র, বৈষম্য ও অসাম্য। নিজেদের মধ্যে লড়াই না করে দুই দেশের উচিত এই শত্রুগুলির বিরুদ্ধে যৌথভাবে লড়াইয়ে নামা।

আমি চাই ভারত ও পাকিস্তানকে প্রকৃত বন্ধু হিসেবে দেখতে।”

এই অনুষ্ঠানে, সংখ্যালঘু নিপীড়ন নিয়েও সরব হন মালালা। ইসলামাবাদকে অস্বস্তিতে ফেলে তাঁর বক্তব্য, “পাকিস্তানে হিন্দু, শিখ ও খ্রিস্টান সংখ্যালঘুরা বিপন্ন।

একইভাবে ভারতে মুসলিম ও দলিতরা ভারতে সুরক্ষিত নন।”

উল্লেখ্য, ২০১২ সালে সমাজকর্মী মালালা ইউসুফজাইকে গুলি করেছিল এক সন্ত্রাসবাদী।

সেই ঘটনায় শিউরে উঠেছিল গোটা বিশ্ব। তখন মালালা ছিলেন স্কুলছাত্রী। তারপর থেকে জল অনেকটাই গড়িয়েছে।

নারীদের শিক্ষার অধিকার থেকে শুরু করে বৈষম্য ও সংখ্যালঘু নিপীড়নের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন তিনি।