“শুভ” বা “মঙ্গল” ভগবান শিব

শিব আক্ষরিক অর্থে “শুভ” বা “মঙ্গল” ভগবান শিব হিন্দুধর্মের আদিদেব। ত্রিমূর্তির প্রধান (ত্রিমূতি হলো হিন্দুদের প্রাথমিক দৈব্য সত্ত্বা) ত্রিমূতির শিব ধ্বংসের প্রতীক।

সকল অশুভ অন্যায় অত্যাচার ভগবান শিব ধ্বংস করেন। আবার তিনি মঙ্গলময় সত্ত্বা। সকল দেবতার চেয়ে ভগবান শিবের পুজা/আরাধনা করা অধিক ফলপ্রদ।

হিন্দুধর্মের শৈব শাখাসম্প্রদায়ের মতে, ভগবান শিবই হলেন সর্বোচ্চ ঈশ্বর অনাদির আদি অনন্ত ও পরমেশ্বর।

অন্যদিকে স্মার্ত সম্প্রদায় শিবকে পঞ্চদেবতার প্রধান মনে করেন। পঞ্চদেবতা হলো স্মার্ত হিন্দুদের পাচ প্রধান দেবতা।

যে সকল হিন্দুধর্মাবলম্বী ভগবান শিবকেই প্রধান দেবতা মনে করে তাঁর পূজা করেন, তাঁরা “শৈব” নামে পরিচিত।

বিষ্ণু-পূজক বৈষ্ণব বা দেবী-পূজক শাক্তদের মতো শৈবরাও হিন্দুধর্মের অন্যতম প্রধান শাখাসম্প্রদায়।

শিবকে সাধারণত বিমূর্ত শিবলিঙ্গের রূপে পূজা করা হয়।

শিব

 

 

 

 

 

 

 

 

তাঁর মূর্তির মধ্যে ধ্যানমগ্ন অবস্থা বা মায়াসুরের পিঠে তাণ্ডবনৃত্যরত অবস্থার মূর্তি(নটরাজ মূর্তি) বেশি প্রচলিত।

শিব অপর দুই প্রধান হিন্দু দেবতা গণেশ ও কার্তিকের পিতা। শৈবদের মতে শিব পরমকরুনাময় ঈশ্বর ও পরমেশ্বর ভগবান।

শৈব সম্প্রদায় মনে করেন ব্রহ্মা ও বিষ্ণু এদের উৎপত্তি শিব থেকে। শৈবদের মতে ব্রহ্মা পদ্মাসনে বসে সদাসর্বদা পরমেশ্বর ভগবান শিবের ধ্যান করছেন।

এবং পরমেশ্বর ভগবান শিব কে প্রসন্নতা করছেন। আর বিষ্ণু ও যোগনিদ্রায় পরমেশ্বর ভগবান শিবের ধ্যান করছেন।

শৈবধর্ম মতে শৈবদের পরম আরাধ্য পরমেশ্বর ভগবান শিব সমস্ত ধর্মীয় শাস্ত্রের পরম রচয়িতা ও পরম বক্তা।

সংস্কৃত শিব শব্দটি একটি বিশেষণ, যার অর্থ “শুভ, দয়ালু ও মহৎ”। ব্যক্তিনাম হিসেবে এই শব্দটির অর্থ “মঙ্গলময়”।

রূঢ় রুদ্র শব্দটির পরিবর্তে অপেক্ষাকৃত কোমল নাম হিসেবে এই শব্দটি ব্যবহৃত হয়।

বিশেষণ হিসেবে শিব শব্দটি কেবলমাত্র রুদ্রেরই নয়, অন্যান্য বৈদিক দেবদেবীদের অভিধা রূপে ব্যবহৃত হয়ে থাকে।

সংসকৃত শৈব শব্দটির অর্থ “শিব সংক্রান্ত”। এই শব্দটি হিন্দুধর্মের একটি অন্যতম প্রধান শাখাসম্প্রদায়

ও সেই সম্প্রদায়ের মতাবলম্বীদের নাম হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

শৈবধর্মের কয়েকটি প্রথা ও ধর্মবিশ্বাসের বিশেষণ রূপেই এই শব্দটি ব্যবহৃত হয়ে থাকে। শৈবধর্ম আবার হিন্দুধর্মের প্রবেশদ্বার।

শিবের নাম সম্বলিত শিব সহস্রনাম স্তোত্রের অন্তত পাঠান্তর পাওয়া যায়।

মহাভারতের ত্রয়োদশ পর্ব অনুশাসনপর্ব-এর অন্তর্গত পাঠটি এই ধারার মূলরচনা বলে বিবেচিত হয়।

মহান্যাসে শিবের একটি দশ সহস্রনাম স্তোত্রেরও সন্ধান পাওয়া যায়।

শতরুদ্রীয় নামে পরিচিত শ্রীরুদ্রম্ চমকম্ স্তোত্রেও শিবকে নানা নামে বন্দনা করা হয়েছে। আধুনিক শিবের সঙ্গে বৈদিক দেবতা রুদ্রের নানা মিল লক্ষিত হয়।

হিন্দুসমাজে রুদ্র ও শিবকে একই ব্যক্তি মনে করা হয়। রুদ্র ছিলেন বজ্রবিদ্যুৎসহ ঝড়ের দেবতা;

তাঁকে একজন ভয়ানক, ধ্বংসকারী দেবতা হিসেবে কল্পনা করা হত।

হিন্দুধর্মের প্রাচীনতম ধর্মগ্রন্থ হল ঋগ্বেদ। ভাষাতাত্ত্বিক তথ্যপ্রমাণ থেকে জানা যায় যে ১৭০০ থেকে ১১০০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দের মধ্যবর্তী সময়ে এই গ্রন্থের রচনা।

ঋগ্বেদে রুদ্র নামে এক দেবতার উল্লেখ রয়েছে। রুদ্র নামটি আজও শিবের অপর নাম হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

ঋগ্বেদে (২-৩৩) তাঁকে “মরুৎগণের পিতা” বলে উল্লেখ করা হয়েছে; মরুৎগণ হলেন ঝঞ্ঝার দেবতাদের একটি গোষ্ঠী। এছাড়াও ঋগ্বেদ ও যজুর্বেদে প্রাপ্ত

রুদ্রম্ স্তোত্রটিতে রুদ্রকে নানা ক্ষেত্রে শিব নামে বন্দনা করা হয়েছে; এই স্তোত্রটি হিন্দুদের নিকট একটি অতি পবিত্র স্তোত্র।

তবে শিব শব্দটি ইন্দ্র, মিত্র ও অগ্নির বিশেষণ হিসেবেও ব্যবহৃত হত।

 

রুদ্রকে “শর্ব” (ধনুর্ধর) নামেও অভিহিত করা হয়। রুদ্রের একটি প্রধান অস্ত্র হল ধনুর্বাণ। নামটি শিব সহস্রনাম স্তোত্রেও পাওয়া যায়।

পরবর্তীকালের ভাষাগুলিতেও এই নামটি শিবের অপর নাম হিসেবে ব্যবহৃত হয়। শব্দটির ব্যুৎপত্তি সংস্কৃত শব্দ শর্ব থেকে, যার অর্থ আঘাত করা বা হত্যা করা।

বিশিষ্ট লেখক আর. কে. শর্মার ব্যাখ্যা অনুযায়ী এই শব্দটির অর্থ “যিনি অন্ধকারের শক্তিসমূহকে হত্যা করতে সক্ষম”।

শিবের অপর দুই নাম ধন্বী (“ধনুর্ধারী”)ও বাণহস্ত (“ধনুর্বিদ”, আক্ষরিক হস্তে “বাণধারী” ধনুর্বিদ্যার সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত।

যজুর্বেদে শিবের দুটি পরস্পরবিরোধী সত্ত্বার উল্লেখ রয়েছে। এখানে একদিকে তিনি যেমন ক্রুর ও ভয়ংকর (রুদ্র); অন্যদিকে তেমনই দয়ালু ও মঙ্গলময় (শিব)।

এই কারণে চক্রবর্তী মনে করেন, “যে সকল মৌলিক উপাদান পরবর্তীকালে জটিল রুদ্র-শিব সম্প্রদায়ের জন্ম দিয়েছিল, তার সবই এই গ্রন্থে নিহিত রয়েছে।

মহাভারতেও শিব একাধারে “দুর্জেয়তা, বিশালতা ও ভয়ংকরের প্রতীক” এবং সম্মান, আনন্দ ও মহত্ত্বের দ্বারা ভূষিত।

শিবের নানা নামের মধ্যে তাঁর এই ভয়াল ও মঙ্গলময় সত্ত্বার বিরোধের উল্লেখ রয়েছে।

রুদ্র (সংস্কৃত: রুদ্র) নামটি শিবের ভয়ংকর সত্ত্বার পরিচায়ক। প্রথাগত ব্যুৎপত্তি ব্যাখ্যা অনুসারে, রুদ্র শব্দটির মূল শব্দ হল রুদ্-,

যার অর্থ রোদন করা বা চিৎকার করা। স্টেলা ক্র্যামরিক অবশ্য এর একটি পৃথক ব্যুৎপত্তি ব্যাখ্যা দিয়েছেন।

এই ব্যাখ্যাটি বিশেষণ রৌদ্র শব্দটির সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত, যার অর্থ বন্য বা রুদ্র প্রকৃতির।

এই ব্যাখ্যা অনুযায়ী, তিনি রুদ্র নামটির অর্থ করেছেন যিনি বন্য বা প্রচণ্ড দেবতা। এই ব্যুৎপত্তিব্যাখ্যা অনুসারে, আর. কে. শর্মা রুদ্র শব্দের অর্থ করেছেন ভয়ংকর।

মহাভারতের অনুশাসনপর্বের অন্তর্গত শিব সহস্রনাম স্তোত্রে শিবের হর নামটির উল্লেখ করা হয়েছে তিন বার।

এটি শিবের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ নাম। অনুশাসনপর্বে তিন বারই এই নামের উল্লেখ করা হয়েছে সম্পূর্ণ ভিন্নতর অর্থে।

এই তিনটি উল্লেখে হর নামটির অর্থ করেছেন “যিনি বন্দী করেন”, “যিনি এক করেন” এবং “যিনি ধ্বংস করেন”।

শিবের অপর দুই ভয়ংকর রূপ হল “কাল”ও “মহাকাল”। এই দুই রূপে শিব সকল সৃষ্টি ধ্বংস করেন।

ধ্বংসের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত শিবের অপর একটি রূপ হল ভৈরব ভৈরব” শব্দটির অর্থও হল “ভয়ানক”।

অপরপক্ষে শিবের শংকর নামটির অর্থ “মঙ্গলকারক” বা “আনন্দদায়ক”। এই নামটি শিবের দয়ালু রূপের পরিচায়ক।

বৈদান্তিক দার্শনিক আদি শংকর (৭৮৮-৮২০ খ্রি.) এই সন্ন্যাসজীবনের নাম হিসেবে নামটি গ্রহণ করে শংকরাচার্য নামে পরিচিতি লাভ করেন।

একই ভাবে শম্ভু নামটির অর্থও “আনন্দদায়ক। এই নামটিও শিবের দয়ালু রূপের পরিচায়ক। নৃতত্ত্বারোপিত মূর্তি ব্যতিরেকেও

শিবলিঙ্গ বা লিঙ্গ-এর আকারে শিবের পূজাও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচিত হয়। শিবলিঙ্গ বিভিন্ন প্রকারের হয়ে থাকে।

শিব শব্দের অর্থ মঙ্গলময় এবং লিঙ্গ শব্দের অর্থ প্রতীক; এই কারণে শিবলিঙ্গ শব্দটির অর্থ সর্বমঙ্গলময় বিশ্ববিধাতার প্রতীক।

শিব শব্দের অপর একটি অর্থ হল যাঁর মধ্যে প্রলয়ের পর বিশ্ব নিদ্রিত থাকে।

এবং লিঙ্গ শব্দটির অর্থও একই – যেখানে বিশ্বধ্বংসের পর যেখানে সকল সৃষ্ট বস্তু বিলীন হয়ে যায়।

যেহেতু হিন্দুধর্মের মতে, জগতের সৃষ্টি, রক্ষা ও ধ্বংস একই ঈশ্বরের দ্বারা সম্পন্ন হয়, সেই হেতু শিবলিঙ্গ স্বয়ং ঈশ্বরের প্রতীক রূপে পরিগণিত হয়।

মনিয়ার-উইলিয়ামস ও ওয়েন্ডি ডনিগার প্রমুখ কয়েকজন গবেষক শিবলিঙ্গকে একটি পুরুষাঙ্গ-প্রতিম প্রতীক মনে করেন।

যদিও ক্রিস্টোফার ইসারহুড স্বামী বিবেকানন্দ, স্বামী শিবানন্দ, ও এস. এন. বালগঙ্গাধর প্রমুখ বিশেষজ্ঞগণ এই মতকে খণ্ডন করেছেন।

অথর্ববেদ সংহিতা গ্রন্থে যূপস্তম্ভ নামে একপ্রকার বলিদান স্তম্ভের স্তোত্রে প্রথম শিব-লিঙ্গ পূজার কথা জানা যায়।

এই স্তোত্রের আদি ও অন্তহীন এক স্তম্ভ বা স্কম্ভ-এর বর্ণনা পাওয়া যায়। এই স্কম্ভ-টি চিরন্তন ব্রহ্মের স্থলে স্থাপিত। যজ্ঞের আগুন, ধোঁয়া, ছাই, সোম লতা,

এবং যজ্ঞকাষ্ঠবাহী ষাঁড়ের ধারণাটির থেকে শিবের উজ্জ্বল দেহ, তাঁর জটাজাল, নীলকণ্ঠ ও বাহন বৃষের একটি ধারণা পাওয়া যায়।

তাই মনে করা হয়, উক্ত যূপস্তম্ভই কালক্রমে শিবলিঙ্গের রূপ ধারণ করেছে। লিঙ্গপুরাণ গ্রন্থে এই স্তোত্রটিই উপাখ্যানের আকারে বিবৃত হয়েছে।

এই উপাখ্যানে কীর্তিত হয়েছে সেই মহাস্তম্ভ ও মহাদেব রূপে শিবের মাহাত্ম্য।