ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দু’গ্রামবাসীর সংঘর্ষে পুলিশ সহ আহত ৪০, আটক ১২

বাবুল সিকদার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রতিনিধি: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে পুকুরে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে দু’দল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে পুলিশ সহ ৪০ জন আহত হয়েছেন। এ সময় প্রতিপক্ষের বেশ কয়েকটি বাড়ি-ঘরে ভাংচুর কর হয়। বুধবার (৩ জুন) সকালে উপজেলার শ্যামগ্রাম ইউনিয়নের সাহেবনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং স্থানীয় ইউপি সদস্য আতিক মিয়াসহ ১২ জনকে আটক করে পুলিশ।

 

এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, গত মঙ্গলবার রাতে পুকুরে মাছ ধরার ঘটনাকে কেন্দ্র সাহেবনগর বাজারে এলাকার হোসেন আলির বাড়ির রাব্বানি মিয়াকে মারধোর করে একই এলাকার মাঈনুদ্দিন মিয়ার বাড়ির সুমন মিয়া ও তার লোকজন। এর জের ধরে আজ সকালে উভয় বাড়ির লোকজন দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। প্রায় দুই ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে উভয়পক্ষের লোক ও পুলিশ সহ ৪০ জন আহত হয়। খবর পেয়ে নবীনগর থানার পুলিশ পরিদর্শক মোঃ রুহুল আমিনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

 

এ সময় পুলিশ শ্যামগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের ১নং ওয়ার্ডের সদস্য (মেম্বার) মোঃ আতিক মিয়াসহ উভয়পক্ষের ১২ জনকে আটক করে। এ ব্যাপারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (নবীনগর সার্কেল) মোঃ মকবুল হোসেনের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। পুলিশ ইউপি সদস্যসহ ১২ জনকে আটক করেছে।