ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত স্থাপনাগুলো পরিদর্শনে পুলিশের আইজিপি

বাবুল সিকদার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রতিনিধি: ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদে

এবং ঢাকা ও চট্টগ্রামে মাদরাসার ছাত্রদের ওপর পুলিশের হামলার খবরে ২৬ মার্চ থেকে ২৮ মার্চ পর্যন্ত হেফাজতে

ইসলামের কর্মীদের হামলায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ক্ষতিগ্রস্ত স্থাপনাগুলো পরিদর্শন করেছেন পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ক্ষতিগ্রস্ত স্থাপনা পরিদর্শন করেন পুলিশ প্রধান। প্রথমে ক্ষতিগ্রস্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার উস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ পৌরমিলনায়তন পরিদর্শন করেন তিনি।

এরপর পৌরসভা কার্যালয়,বঙ্গবন্ধু স্কয়ারের বঙ্গবন্ধুর ক্ষতিগ্রস্ত ম্যুরাল,আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গন,সদর উপজেলা ভূমি অফিস

ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবসহ বেশ কয়েকটি ক্ষতিগ্রস্ত স্থাপনা পরিদর্শন করেন। পরিদর্শন শেষ করে সার্কিট হাউজে হেফাজতকর্মীদের হামলা নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন আইজিপি।

এ সময় পুলিশ প্রধানের সঙ্গে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের মহাপরিচালক আব্দুল্লাহ আল মামুন, পুলিশের স্পেশাল শাখার প্রধান মনিরুল ইসলাম,

চট্টগ্রাম রেঞ্জ পুলিশের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মো.আনোয়ার হোসেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক

হায়াদ উদ দৌলা খান ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার (এসপি) মো. আনিসুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য,

২৬ থেকে ২৮ মার্চ ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশন,পুলিশ সুপারের কার্যালয়,সিভিল সার্জনের কার্যালয়,মৎস্য কর্মকর্তার কার্যালয়,

জেলা পরিষদ কার্যালয়, জেলা পরিষদের ডাকবাংলো, পৌরসভা কার্যালয়, সুর সম্রাট আলাউদ্দিন সংগীতাঙ্গন, আলাউদ্দিন খাঁ পৌরমিলনায়তন,

শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ভাষা চত্বর,সদর উপজেলা সহকারী কমিশনারের (ভূমি) কার্যালয়,জেলা গণগ্রন্থাগার, খাঁটিহাতা হাইওয়ে থানা ভবন,

আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আবু নাছের আহমেদ এর বাসভবন,সৈয়দ নজরুল ইসলাম সেতু টোলপ্লাজা ও

পানি উন্নয়ন বোর্ডসহ বেশ কয়েকটি স্থাপনায় হামলা চালিয়ে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীরা।