বোয়ালমারীর চতুল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্ত

মোঃ ইলিয়াস মোল্যা: ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার চতুল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মনির হোসেনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্ত করেছেন বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. আনোয়ার হক। রবিবার (০৮ মার্চ) দুপুরে এ তদন্ত হয়।

তদন্ত চলাকালিন সময় বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও স্কুলের আশপাশের লোকজনের বক্তব্য নেন তদন্ত কমিটির প্রতিনিধি মো. আনোয়ার হক। চতুল ইউপি চেয়ারম্যান শরীফ সেলিমুজ্জামান ও বিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক মলয় কুমার বোষ তদন্ত কমিটিকে বলেন, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষা চলাকালিন সময়ে একজনের পরীক্ষা আরেকজনকে দিয়ে এবং পরীক্ষার্থীর খাতা কেন্দ্রের বাইরে পাঠিয়ে দিয়ে পরীক্ষা নিচ্ছিল প্রধান শিক্ষক।

এমন কি ওই প্রধান শিক্ষক টাকার বিনিময়ে পরীক্ষার্থীদের পাশ করার দায়িত্ব নেন। তদন্ত চলাকালিন সময় প্রধান শিক্ষক মো. মনির হোসেন উপস্থিত ছিলেন। সাংবাদিকরা জানতে চাইলে, তদন্ত কমিটির প্রতিনিধি মো. আনোয়ার হক বলেন, এখন কিছু বলতে পারবো না। তদন্ত করতে এসেছি তদন্ত করে প্রতিবেদন উর্ধ্বতন কতৃপক্ষের নিকট জমা দেওয়া হবে ।

পরে কতৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নিবেন। উল্লেখ্য গত ৭ ফেব্রুয়ারি চতুল উচ্চ বিদ্যালয় উন্মুক্ত কেন্দ্রে এসএসসি পরীক্ষা চলাকালিন প্রক্সি দিতে আসা ৮ জনকে আটক করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ঝোটন চন্দ। পরে ওইদিন নিজ কার্যালয় ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে তাদেরকে জরিমানা করেন।

১২ ফেব্রুয়ারি ওই কেন্দ্র সচিব মো. মনির হোসেনকে অব্যাহতি দিয়ে সহকারী প্রধান শিক্ষক মো. আতিকুল ইসলামকে কেন্দ্র সচিবের দায়িত্ব দেওয়া হয় এবং কেন্দ্র ও মো. মনির হোসেনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে সুপারিশ করেন ইউএনও।