বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাস- শিক্ষা ব্যবস্থা পুনর্গঠনে এখনই পদক্ষেপ গ্রহণ করা প্রয়োজন: অধ্যক্ষ মোঃ শাহজাহান আলম সাজু

বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসের প্রভাবে সারা বিশ্ব আজ চরম বিপর্যয়ের সম্মুখীন। সারা বিশ্বের অর্থনীতি আজ চরম হুমকির মধ্যে পড়েছে। বাংলাদেশও আজ চরম সংকটের সম্মুখীন।

মানুষের জীবনের নিরাপত্তার জন্য সরকার সকল মিল ফ্যাক্টরি ও নিত্য প্রয়োজনীয় কিছু দোকান পাট ছাড়া সকল দোকান পাট বন্ধ ঘোষণা করেছে। মসজিদ মন্দির সহ সকল উপাসনালয়ে ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান সীমিত করেছে। মানুষের জীবন রক্ষায় গৃহীত এসব উদ্যোগের ফলে বাংলাদেশে এখনো মৃত্যুর হার সীমিত পর্যায়ে রয়েছে। ফলে সারা বিশ্ব বাংলাদেশ সরকারের গৃহীত পদক্ষেপের প্রসংশা করছে যা আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হচ্ছে। সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপে মৃত্যুর হার এখন পর্যন্ত সীমিত আকারে থাকলেও দেশের মানুষের জীবনধারণ অত্যন্ত কঠিন হয়ে দাড়িয়েছে।

বিশেষ করে স্বল্প আয়ের মানুষ তথা দিনমজুর, শ্রমজীবী,ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী,নিন্ম আয়ের খেটে খাওয়া মানুষদের জীবনধারণ এক কঠিন বাস্তবতার সম্মুখীন। মিল ফ্যাক্টরি বন্ধ হয়ে যাবার ফলে দেশের অর্থনীতির চালিকাশক্তি শিল্প মালিকরাও আজ চরম সংকটের মুখোমুখি। এই মহাদুর্যোগে দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এক লক্ষ কোটি টাকার প্রণোদনা ঘোষণা করেছেন। তবে প্রণোদনা যেন প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত সব সেক্টরে বন্টন করা হয় সেদিকে গুরুত্ব দিতে হবে। করোনার প্রভাবে অন্যন্য সেক্টরের মত বাংলাদেশের শিক্ষা সেক্টরও চরম বিপর্যয়ের সম্মুখীন । সারা দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা এখন মুখথুবড়ে পড়েছে।

গত প্রায় দুইমাস যাবৎ দেশের সকল স্কুল, কলেজ, মাদরাসা, বিশ্ববিদ্যালয় সহ সন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এতে লক্ষ লক্ষ শিক্ষার্থীর পড়ালেখা চরম সংকটের মধ্যে পড়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ক্লাশ সিডিউল সব ওলটপালট হয়ে গেছে। সরকার টেলিভিশনের মাধ্যমে এবং কিছু কিছু প্রতিষ্ঠান অনলাইনের মাধ্যমে ক্লাশ নেওয়ার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ক্ষতি কিছুটা পুষিয়ে নেওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে দেশের অন্যতম বৃহৎ পাবলিক পরীক্ষা এইচএসসি ফাইনাল স্থগিত করা হয়েছে। কিন্তু কখন এই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে এই মুহূর্তে তা বলাও সম্ভব নয়। ফলে তাদের অপুরণীয় ক্ষতি হলো। নতুন প্রজন্মের কাছে সম্পুর্ণ অপরিচিত দেশের বর্তমান চরম এই অস্হিতিশীল পরিবেশের মধ্যে বাড়িতে বসে তারা যে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিবে সেই পরিবেশও নেই। যারা দরিদ্র পরিবারের সন্তান বিশেষ করে যারা শ্রমজীবী কিংবা মধ্যবিত্ত পরিবারের তাদের করুন অবস্থা। তাদের পরিবারে অনেকের বাড়িতে ঠিকমত চুলাই জ্বলছে না।

এমতাবস্থায় তারা কিভাবে পড়াশোনায় মনোনিবেশ করবে? কিভাবে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিবে?

করোনার সংকটের ফলে দেশের সরকারি,বেসরকারি সকল বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ এবং সকল পরীক্ষা স্থগিতের ফলে উচ্চ শিক্ষার ক্ষেত্রেও চরম সংকট দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে বিভিন্ন চুড়ান্ত পরীক্ষা স্থগিতের ফলে শিক্ষার্থীরা চরম হতাশায় নিমজ্জিত হয়েছেন। এমনও শিক্ষার্থী আছে যাদের একটি বা দুইটি পরীক্ষা বাকি ছিল তারাও আটকা পড়ে গেছেন। আকস্মিক এই অনির্ধারিত বন্ধের ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের সেশনজটের কবলে পড়তে যাচ্ছে।

করোনার প্রভাবে শুধু শিক্ষার্থী নয় শিক্ষক ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও চরম হুমকির মধ্যে পড়েছে। সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক কর্মচারীরা যে বেতন পান তা দিয়ে হয়ত চালিয়ে নিতে পারবে। এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক কর্মচারীরা সরকারি যে বেতন পান তা দিয়ে তাদের সংসার চালানো দায়। তারা প্রতিষ্ঠান থেকে যে বাড়ি ভাড়া ও অন্যন্য সুযোগ সুবিধা পান তা দিয়ে কোনরকমে সামলে নেন। কিন্তু প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় তাদের জীবনধারণও কঠিন হয়ে পড়ছে। তবে বেসরকারি ননএমপিও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যারা মুলধারার শিক্ষার সাথে সংশ্লিষ্ট তাদের অবস্থা অত্যন্ত করুন।

এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক কর্মচারীরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে নামমাত্র কিছু বেতন পেয়ে থাকেন। কোথাও কোথাও তাও পান না। বর্তমানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি ও বন্ধ। এছাড়া টিউশনি করে যারা কোনরকম জীবন নির্বাহ করতেন তাদের টিউশনিও বন্ধ। এমতাবস্থায় তাঁরা চরম আর্থিক সংকটে নিপতিত হয়েছেন। এমপিওভুক্ত বড় বড় অনেক প্রতিষ্ঠানেও বিপুল সংখ্যক ননএমপিও শিক্ষক কর্মচারী এবং অনার্স মাস্টার্স কলেজ সমুখে বিপুল সংখ্যক ননএমপিও অনার্স মাস্টার্স শিক্ষক রয়েছেন তাঁরাও এখন চরম আর্থিক সংকটের সম্মুখীন। স্বতন্ত্র এবতেদায়ি মাদরাসার কয়েক হাজার শিক্ষকের কেউ কেউ নামমাত্র বেতন পান, আবার অনেক শিক্ষক একবারে কিছুই পান না। অথচ আলীয়া মাদরাসা শিক্ষা টিকিয়ে রাখার জন্য এসব মাদরাসার ব্যাপক ভূমিকা রয়েছে। তারাও অত্যন্ত মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

কারিগরি শিক্ষার প্রসারে বাংলাদেশে বেসরকারি উদ্যোগে ৫৫৩ টি বেসরকারি পলিটেকনিক গড়ে উঠেছে। সম্পুর্ন নিজস্ব অর্থায়নে গড়ে উঠা এসব প্রতিষ্ঠান শুধুমাত্র শিক্ষার্থীদের বেতনের উপর নির্ভরশীল। বর্তমান পরিস্থিতিতে এসব প্রতিষ্ঠান টিকিয়ে রাখাই কঠিন হয়ে পড়েছে। পলিটেকনিক ছাড়াও কারিগরি বোর্ডের অধিনে কৃষি,মৎস্য সহ এমন আরো বেশকিছু কোর্স চালু রয়েছে যারা একই সংকটের সম্মুখীন। এ ছাড়াও সম্পুর্ন বেসরকারি উদ্যোগে বেশ কিছু স্কুল, কলেজ ও বিশ্বিবদ্যালয় গড়ে উঠেছে যারা শিক্ষার্থীদের নিকট থেকে মোটা অংকের টিউশন ফি নিয়ে থাকে। তারাও এখন সংকটে পড়েছে।

এছাড়াও বাংলাদেশে সম্পুর্ণ বেসরকারি উদ্যোগে প্রায় ৪০ হাজার কিন্ডারগার্টেন গড়ে উঠেছে। এসব প্রতিষ্ঠানে কয়েক লক্ষ শিক্ষার্থী পড়াশোনা করে। এদেশের শিক্ষা বিস্তারে এসব কিন্ডারগার্টেনও অবদান রয়েছে। এসব কিন্ডারগার্টেনে প্রায় দুই লক্ষাধিক শিক্ষক কর্মচারী কর্মরত আছেন। করোনার প্রভাবে তারা সবচেয়ে বেশি সংকটে পড়েছে। এইসব প্রতিষ্ঠান গুলি সম্পুর্ন শিক্ষার্থীদের বেতনের টাকায় পরিচালিত হয়ে থাকে। এছাড়াও রয়েছে জনগনের দানের টাকায় পরিচালিত কয়েক হাজার কওমি মাদরাসা। এসব মাদরাসায় কর্মরত আছেন লক্ষাধিক শিক্ষক। এসব প্রতিষ্ঠান এখন প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষক কর্মচারীদের বেতনও বন্ধ।

এমতাবস্থায় তারা অত্যন্ত মানবিক বিপর্যয়ের মুখোমুখি। বেসরকারি ননএমপিও শিক্ষকদের অধিকাংশেরই এমন অবস্থা দাড়িয়েছে তাঁরা লোকলজ্জার ভয়েও কারো কাছে হাতও পাততে পারছে না অথচ অনেকের বাসায় চুলাও জ্বলছে না। তবে আসার কথা হলো দীর্ঘদিন পর সরকার এবার ২৭৩০ টি ( স্কুল,কলেজ,মাদরাসার ও কারিগরি) প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করেছে। প্রতিষ্ঠান গুলি শিক্ষা মন্ত্রনালয় কর্তৃক যাচাই বাছাইও সম্পন্ম করা হয়েছে। দেশের এই সংকটে শিক্ষকদের সমস্যার কথা বিবেচনা করে শিক্ষা মন্ত্রী এবং উপমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে এইসব প্রতিষ্ঠানগুলির এমপিওর উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে । আসন্ন ঈদের আগেই তাঁরা এমপিওর টাকা পাবেন এতে অন্তত ৩০/৩২ হাজার শিক্ষকের সমস্যা সমাধান হবে।

যদি করোনার ভাইরাস আরো দীর্ঘায়িত হয় সেক্ষেত্রে পরিস্থিতি আরো জটিল আকার ধারণ করবে। এমতাবস্থায় সরকারকে এই বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। বর্তমানে দেশের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার প্রায় ৯৭% বেসরকারি উদ্যোগে পরিচালিত হয়ে থাকে। ফলে বাংলাদেশের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বেসরকারি শিক্ষার উপর নির্ভরশীল। জাতীয় স্বার্থেই এই শিক্ষাকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে। এখনই যথাযথ কার্যকর পদক্ষেপ না নিলে শিক্ষাখাতে ভয়াবহ সংকট দেখা দিতে পারে।

এব্যাপারে প্রয়োজনে শিক্ষার সাথে সংশ্লিষ্ট স্কুল কলেজ মাদরাসা,কারিগরি,বিশ্ববিদ্যালয় সহ সর্বস্তরের বরেণ্য শিক্ষক প্রতিনিধি ও শিক্ষাবিদদের সমন্নয়ে একটি বিশেষঞ্জ কমিটি গঠন করে উদ্ধুত পরিস্থিতিতে করণীয় নির্ধারণ করা যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে সরকার ঘোষিত প্রণোদণার অংশ থেকে শিক্ষার জন্য একটি বিশেষ ফান্ড গঠন করা যেতে পারে। শিক্ষার্থীদের ক্ষতি পোষাতে কিছু প্রস্তাবনা; করোনা ভাইরাসের এই দুর্যোগের ফলে শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার জন্য বিকল্প চিন্তা করতে হবে।

বর্তমানে টেলিভিশনে ক্লাস নেওয়ার সংখ্যা আরো বৃদ্ধি করা যেতে পারে। এ ছাড়াও তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানকে অনলাইন, ফেইসবুক,ইউটিউব,মোবাইল ম্যাসেঞ্জারের মাধ্যমে সরাসরি শিক্ষার্থীদের পাঠদান করা যেতে পারে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবার পর নির্ধারিত ছুটি কমিয়ে ক্লাসের সংখ্যা বাড়ানো যেতে পারে। শিক্ষকদের স্ব-উদ্যোগে অতিরিক্ত ক্লাশের ব্যবস্থা গ্রহণ করা যেতে পারে। এছাড়াও এই সময়ে স্ব স্ব শ্রেণি শিক্ষকদের মাধ্যমে মোবাইলে শিক্ষার্থীদের সাথে যোগাযোগের মাধ্যমে তাদের পড়ালেখার প্রতি উৎসাহ এবং গাইড লাইন দেওয়া যেতে পারে। ছুটি দীর্ঘায়িত হলে পাঠ্যবইয়ের গুরুত্ব অনুযায়ী সিলেবাস সংক্ষিপ্ত করা যেতে পারে। লেখক ; সাবেক ছাত্রনেতা,সাধারণ সম্পাদক,স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ ও সচিব, বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্ট, শিক্ষা মন্ত্রণালয় ।