বেলকুচিতে  টাকা ছাড়া নড়েন না বিএডিসি’ সহকারী  প্রকৌশলী শামশাদ

পারভেজ আলী বেলকুচি প্রতিনিধি: মন মত টাকা না পেলে নড়েন না বেলকুচি উপজেলার বিএডিসি অফিসের সহকারী প্রকৌশলী শামসাদ হোসেন। সেচ প্রকল্প নিয়ে নানা তালবাহানা করছেন বলে অভিযোগ তুলেছেন সেচ প্রত্যাশী কৃষকরা শামশাদ হোসেনের বিরুদ্ধে।

এমনকি সেচ প্রকল্পের ছারপত্র দিতেও মোটা অংকের টাকা গুনতে হচ্ছে কৃষকদের  বলে অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। আবার বৈধতা অবৈধতার তোয়াক্কা করছেন না তিনি। এমনও অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে টাকা না দিলে কৃষকের আবেদন সেচ কমিটির কাছে পৌছায় না।

বেলকুচি উপজেলার ধুকুরিয়া বেড়া ইউনিয়নের মিটুয়ানী গ্রামের কৃষক কামরুজ্জামান ও হাসান আলী জানান, আমরা ২০১৮ সালের ডিসেম্বর মাসে সেচের জন্য আবেদন করি। অনেক বার বিএডিসি অফিসের সহকারী প্রকৌশলী শামশাদ সাহেবের কাছে ঘুরেছি। তিনি নানা আজুহাতে আমাদেরকে হয়রানি করেন। পরবর্তীতে তিনি আমাদের কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন। যেহেতু টাকা ছাড়া তিনি আমাদের সেচ নিতে হবে তাই তাকে অনুরোধ করে কৃষক কামরুজ্জামান ৫ হাজার টাকা টাকা দেয়। আজ পর্যন্ত আমাদের সেচের ব্যবস্থা হয়নি।

এ বিষয়ে বিএডিসি অফিসের সহকারী প্রকৌশলী শামসাদ প্রতিবেদকে জানান, সেচের আবেদনগুলো অপেক্ষামান আছে। এগুলো সম্পূর্ণ সেচকমিটির সভাপতি ও সদস্যরা দেখা শোনা করবেন।

অপরদিকে সেচ কমিটির সভাপতি ও বেলকুচি উপজেলা নির্বাহী অফিসার সিফাত -ই- জাহান বলেন, আমরা সেচের আবেদনগুলো যাচাই-বাছাই করা হবে। যে বৈধভাবে সেচ পাওয়ার যোগ্য তাকেই সেচ সংযোগ প্রদানের জন্য ছারপত্র দেওয়া হবে। সহকারী প্রকৌশলী শামশাদ বিরুদ্ধে দূর্নীতি সম্পর্কে আমার জানা নেই। কারণ আমি এখানে নতুন এসেছি।