বেলকুচিতে ইউনিয়ন ভূমি সহকারী সেলিম রেজার বিরুদ্ধে দূর্নীতির অভিযোগ

পারভেজ আলী, বেলকুচি (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি:সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দূর্নীতি ও হয়রানির অভিযোগে উঠেছে। বেলকুচি উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নধীন তেয়াশিয়া ইউনিয়ন সহকারী ভূমি (ভারপ্রাপ্ত) কর্মকর্তা সেলিম রেজার বিরুদ্ধে সিমাহীন দূর্নীতির ও হয়রানি করার অভিযোগ তুলেছেন একই উপজেলার চরবেল গ্রামের শুকুর আলীর ছেলে মোতালেব হোসেন।

মোতালেব হোসেন জানান, বেলকুচি উপজেলাধীন ১০১নং ধুলগাগড়াখালী মৌজায় আমার পিতার নামীয় ফসলি ৩৩ শতাংশ বাড়ি আমার নামে হস্তান্তর করার জন্য দলিল সম্পাদন করা হয়। দলিল সম্পাদন করার আগে গত ৩ ডিসেম্বর ২০১৯ সালে তেয়াশিয়া ইউনিয়ন ভূমি অফিসে ভূমি উন্নয়ন কর পরিশোধ করতে গেলে ইউনিয়ন সহকারী ভূমি কর্মকর্তা সেলিম রেজা নানা প্রকার তালবাহানা করিয়া ভূমি উন্নয়ন কর গ্রহন করতে অসম্মতি জানায় ও সময় ক্ষেপন করিতে থাকে।

আমি তাকে নানা ভাবে কাকুতিমিনতি করিলে সে আমার কাছে বলেন ৩ হাজার টাকা দিলে দাখিলা দেওয়া হবে। যেহেতু আমার দাখিলা প্রয়োজন তাই আমি বাধ্য হয়ে ২ হাজার দিয়ে দাখিলা নিয়ে আমার নামে দলিল খানা রেহিষ্টি করি।

পরবর্তীতে আমার নামীয় দলিল নামজারী করার জন্য অনলাইন আবেদন করি। নামজারী আবেদন তদন্তের জন্য পাঠানো হলে সেলিম রেজা আমাকে মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে তদন্ত রিপোর্টের জন্য ১০হাজার টাকা দাবী করে আর এই টাকা তাকে না দিলে আমার খারিজ বাতিল করে দেবে বলে হুমকি দেয়। আমি সেলিম রেজা শুধু আমাকে হয়রানি করে না। তার কাছে গিয়ে আমার মত আরও অনেকেই হয়রানি হচ্ছে।

তার অসহনীয় দূর্নীতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য আমি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এদিকে তেয়াশিয়া অফিসের সহকারী ভূমি কর্মকর্তা সেলিম রেজার সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি প্রতিবেদককে জানান, আমি মোতালেব হোসেনের কাছ থেকে কোন বারতি টাকা নেই নাই। আর তার সাথে টাকা পয়সার ব্যাপারে কোন কথা হয়নি। তাকে ফোন দেওয়া হয়নি। আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করেছে এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা।

এ বিষয়ে বেলকুচি উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ রহমত উল্লাহ জানান, আমি লিখিত আকারে তেয়াশিয়া ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ভারপ্রাপ্ত সহকারী কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দূর্নীতি ও হয়রানির অভিযোগে পেয়েছি। এটা তদন্তের মাধ্যমে যদি সে আনিত অভিযোগ প্রমানিত হয় তবে তার বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।