বেনাপোল সোনালী ব্যাংকে ভ্রমনকর পেপার না থাকায় হয়রানীর স্বীকার যাত্রীরা

জসিম উদ্দিন, বেনাপোল প্রতিনিধিঃ বেনাপোল চেকপোষ্ট সোনালী ব্যাংকে ভ্রমনকর পেপার না থাকার কারনে এ চেকপোষ্ট দিয়ে ভারতে গমনকারী পাসপোর্ট যাত্রীরা ব্যাপক হয়রানীর স্বীকার হচ্ছেন। বেনাপোল আন্তজার্তিক চেকপোষ্ট দিয়ে প্রতিদিন ৭ হাজার থেকে ৮ হাজার পাসপোর্ট যাত্রী ভারত বাংলাদেশের মধ্যে যাতায়াত করে থাকে। এর মধ্যে প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা প্রায় ৪ হাজার যাত্রী বেনাপোল চেকপোষ্ট সোনালী ব্যাংক থেকে ভ্রমনকর সংগ্রহ করে ভারতে গমন করে থাকেন। অনলাইনে ভ্রমনকর পরিশোধের সিষ্টেম চালু করা হলেও অধিকাংশ যাত্রীই বেনাপোল সোনালী ব্যাংক থেকেই ভ্রমনকর সংগ্রহ করে থাকেন।

বেনাপোল সোনালী ব্যাংক থেকে অন্য সময়ে ম্যানুয়াল পদ্ধতিকে ভ্রমনকর সংগ্রহে সমস্যা না হলেও বর্তমানে ব্যাংকে ভ্রমনকর পেপার না থাকার কারনে মহা বিপাকে পড়েছে পাসপোর্ট যাত্রীরা। সারারাত বাস বা ট্রেনে জার্নি করে আসার পর ক্লান্ত শরীরে বেনাপোল চেকপোষ্টে ভ্রমনকর সংগ্রহের জন্য ঘন্টার পর ঘন্টা দাড়িয়ে থাকতে হচ্ছে। সবচেয়ে বেশী ভোগান্তির স্বীকার হচ্ছেন রোগী ও শিশু যাত্রীরা। কেউ কেউ অসুস্থ্য হয়ে ফিরে যাচ্ছেন।

ভারত ভ্রমনে যাওয়া সমর সাহা নামে এক পাসপোর্ট যাত্রী বলেন, তিনি সকাল ৮ টার সময় বেনাপোল চেকপোষ্টে এসে পৌচেছেন। লাইনে দাড়িয়ে ভ্রমনকর সংগ্রহ করতে তার দু ঘন্টা সময় লেগেছে। ব্যাংকের বুথে ভ্রমনকর পেপার না থাকার কারনে টিআর চালানের মাধ্যমে ভ্রমনকর পরিশোধ করেছেন। এভাবে শতশত যাত্রীকে প্রতিদিন ভ্রমনকর সংগ্রহ করতে নানা ভাবে হয়রানীর স্বীকার হতে হচ্ছে।

এ ব্যাপারে বেনাপোল সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপক রাকিবুল হাসান জানান, অনলাইনে ভ্রমনকর সংগ্রহের ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। তবে আমাদের এখানে প্রিন্টার না থাকা ও অনলাইনে ম্যাসেজ দেখার কোন ব্যবস্থা না থাকার কারনে যাত্রীরা অনলাইনে ভ্রমনকর পরিশোধ করার প্রতি আগ্রহী হচ্ছেন না। তাছাড়া গত কয়েকদিন ধরে বেনাপোল ব্যাংকে ভ্রমনকর পেপার না থাকার কারনে টিআর চালানের মাধ্যমে ভ্রমনকর নিতে হচ্ছে। টি আর চালানের মাধ্যমে ভ্রমনকর নিতে সময় লাগছে অনেক। যার কারনে যাত্রীরা একটু হয়রানীর স্বিকার হচ্ছেন। আমরা ভ্রমনকর পেপার সাপর্টের জন্য কর্তপক্ষকে জানিয়েছি। ভ্রমনকর পেপার আসলে সমস্যা সমাধান হয়ে যাবে।