বেনাপোলে রমজানের শুরু থেকেই নিত্যপণ্যের বাজার অস্থিতিশীল : এলাহী কান্ড সবজি বাজারে

জসিম উদ্দিন, বেনাপোল প্রতিনিধি : মাহে রমজানের প্রথম রোজার শুরু থেকেই যশোরের শার্শায় নিত্যপণ্যর বাজার মূল্য নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে । অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে কিছু অতি প্রয়োজনীয় পণ্যের দামও। সাধারণ মানুষের ক্রয় সীমার বাইরে চলে যাওয়ায় রোজাদার ব্যক্তিরা সহ সাধারণ মানুষেরা তাদের মনের গভীর ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

সরকারের নির্দেশ অমান্য করে অসাধু ব‍্যবসায়ীরা অধিক মুনাফা লাভের জন্য ইচ্ছে মতো দাম বৃদ্ধি করে পণ্য বিক্রি করছে বলে জানান সাধারণ মানুষ। যা গত কয়েক দিনের বাজার মূল‍্যের দুই থেকে তিন গুন বেশি।

সরেজমিনে বাজার ঘুরে দেখা যায়, রোজা শুরুর আগেরদিন বাজারে নিত্যপণ্যের যে দাম ছিলো রোজার প্রথম দিনে সব ধরনের পণ্যের দাম বেড়ে দ্বিগুণ হয়ে যায়। রোজার দ্বিতীয় দিনে প্রকার ভেদে নিত্যপণ্যের মুল্য আরো ডবল হয়ে যায়। এ যেন এক এলাহী কান্ড।

যেখানে বাইরের অন্যান্য দেশে রোজায় দ্রব্যমুল্যের উপর ছাড়ের প্রতিযোগীতা হয় সেখানে সোনার বাংলায় দ্রব্যমুল্যের উর্ধগতি দামে চলে গলাকাটা বাণিজ্য।

গত কয়েক দিনে খুঁচরা বাজারে বেগুনের মূল্য ছিলো প্রতি কেজি ২০ টাকা আজ তার দাম পাইকারীতে ৬০ থেকে ৭০ টাকা। এমনি ভাবে প্রতিটি সবজির দাম কেজিতে ১০ থেকে ৩০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে।

১০থেকে ২০ টাকার শসা বিক্রি হচ্ছে পাইকারীতে ৪০ থেকে ৫০ টাকা, আদার দাম ছিল ২৫০ টাকা যা আজ বিক্রি হচ্ছে ৩শত ৫০ টাকা কেজি। ৫০ টাকার ধনেপাতা বিক্রি হচ্ছে ১শ টাকা, ২০ টাকার পটল বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৩৫ টাকা।

বাজার ঘুরে দেখা যায় মাছ মাংস সহ চাল ডাল চিনি ছোলা ও অন‍্যান‍্য প্রতিটি ভোগ‍্য পন‍্যের দাম কেজি প্রতি ২০ থেকে ৩০ টাকা বেড়েছে।
বিভিন্ন ফল ও খেজুর চড়াও মূল্যে বিক্রি
হচ্ছে।

সাধারণ মানুষের বক্তব্য বাজার মনিটরিং ব‍্যবস্থা না থাকাই বাজার মূল্য নিয়ন্ত্রণে নেই। অন‍্যান‍্য বছরের ন‍্যায় এক শ্রেণীর মুনাফা লোভী অসৎ ব‍্যবসায়ীর কারসাজিতে বাজার মূল্যের এ অবস্থা বলে ভূক্তভোগীরা জানান।

তারা জরুরী ভাবে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষকে বাজার মূল্য নিয়ন্ত্রণ করার জন্য আহবান জানান । তা না হলে লাগামহীন পণ্য মানুষের ক্রয় সীমার বাইরে চলে যাবে ।

সবজি ব্যবসায়ীরা জানান, তারা যেদিন যেমন দামে মাল কিনছেন তেমনি ভাবেই বিক্রি করছে। আড়ৎ থেকে বেশি দামে কিনে আমাদেরও বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। দাম বেশি হওয়ায় আমাদের ব্যবসা করতে কষ্ট হচ্ছে।

বর্তমান করোনা ভাইরাসের কারনে কর্মহীন মানুষ। লকডাউনে আছ অনেক ধনি গরীব মধ্যবিত্তরা। এমন ভয়াবহ অবস্থায় নিত্যপণ্যের লাগমহীন দাম সত্যিই মরার উপর খাড়ার ঘা অবস্থা, দিশেহারা মানুষ। অচিরেই নিত্যপণ্যের বাজার মুল্য স্বভাবিক হবে এমনটায় প্রত্যাশা সচেতন মহলে।