বান্দরবানের প্রথম করোনা রোগী সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছে

রানা মারমা, বান্দরবান প্রতিনিধি: করোনা শনাক্তের ১০দিন পর সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন বান্দরবান জেলায় আক্রান্ত রোগী নাইক্ষ্যংছড়ির তুমব্রু এলাকার বৃদ্ধ আবু ছিদ্দিক।২৬এপ্রিল নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিট থেকে এ্যাম্বুলেন্সে করে নিজ বাড়ি পাঠানোর ব্যবস্থা করেন উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সুত্রে জানা যায়, করোনা পজিটিভ সনাক্ত বৃদ্ধ আবু ছিদ্দিক ঢাকা থেকে তবলীগ ফেরত হয়েছিল গত ৬এপ্রিল।
উপজেলা প্রশাসন খবর পাওয়ার সাথে সাথে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দেন তাকে।১৫এপ্রিল নমুনা সংগ্রহ করে তার।সেই নমুনার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। ওই দিন তাকে হোম কোয়ারেন্টিনে রেখে ফোনের মাধ্যমে চিকিৎসা দিলেও তার পরে দিন তাকে সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে রাখা হয়।দায়িত্বরত চিকিৎসকেরা ন্যাশনাল গাইড লাইন অনুযায়ী তার চিকিৎসা দেন এবং আইসোলেশন থেকে আজ সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেন।এর আগে আইসোলেশনে ৭দিন থাকার পর ২৩এপ্রিল কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পাঠানো হয় তার ২য় বারে নমুনা। ওই নমুনা রিপোর্ট নেগেটিভ আসে।
ওই রোগীসহ হাসপাতালের সংস্পর্শে আসা চিকিৎসক ও আইসোলেশন ওয়ার্ড বয়ের নমুনা সংগ্রহ করে কক্সবাজার মেডিকেল পাঠানো হয় ২৫এপ্রিল। ২৬এপ্রিল বিকেলে তৃতীয় বারের রিপোর্টটিও নেগেটিভ পাওয়ার কথা নিশ্চিত করে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ আবু জাফর মো,ছলিম বলেন,করোনা পজিটিভ পাওয়া রোগী আবু ছিদ্দিক দুই দফা টেষ্টে নেগেটিভ রিপোর্ট আসায় তাকে আমরা সুস্থ বলতে পারছি।
তিনি আরো বলেন,ন্যাশনাল গাইড লাইন নিয়মে তিনি ঘরে ৭দিন হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার পর সাত দিনের মাথায় ৪র্থ বারের নমুনা সংগ্রহ করে রিপোর্ট নেগেটিভ আসলে তাকে চুড়ান্ত ভাবে দাবী করা যাবে রোগী পুরোদমে সুস্থ।তখন সেই সাধারণ ভাবে চলাফেরা করতে পারবে আর বাঁধা থাকবে না। আবু ছিদ্দিক (৫৯) নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা ঘুমধুম ইউনিনের তুমব্রু এলাকার কোলাল পাড়াসহ কোনাপাড়া বাসিন্দার। নমুমা টেস্টে পজিটিভ আসার পর পর ৩৬ পরিবারকে রকডাউনে রাখা হয়,তার পরিবারের সবার রিপোর্ট নেগেটিভ আসে।