বাগেরহাটে প্রতিবন্ধী যুবকের অত্মহত্যা

মাহফুজুর রহমান বাপ্পী, বাগেরহাট প্রতিনিধি : বাগেরহাটের শরণখোলায় বাবার সাথে অভিমান করে তরিকুল ইসলাম সজিব (২৭) নামে এক প্রতিবন্ধী যুবক আত্মহত্যা করেছে । (২৪ এপ্রিল) শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে উপজেলার খোন্তাকাটা ইউনিয়নের রাজৈর গ্রামে এ আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে ।

পারিবারিক সূত্রে জানাযায়, (২২ এপ্রিল) বুধবার সজিবের হাতে থাকা একটি মোবাইলের দুটি সিম খুলে নেন তার বাবা । এর পরেরদিন বৃহস্পতিবার সজিব তার সিম দুটি বাবার কাছে ফিরে পেতে চান । তখন বাবা তাকে সিম না দেওয়ার কথা বলেন। আজ শুক্রবার সকালে আবারো সিম চাইতে গেলে বাবা বলেন, তুই সারাদিন মোবাইলে কথা বলো এতে আমার টাকা খরচ হয়, তাই আর সিম দেয়া যাবেনা । কথা বলতে হলে আমার ফোন নিয়ে কথা বলবি । এই বলে সজিবের বাবা রায়েন্দা বাজারের নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে চলে গেলে সজিব তার নিজ কক্ষে দরজা বন্ধ করে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে ।

সজিব খোন্তাকাটা ইউনিয়নের রাজৈর গ্রামের মোঃ মজিবর রহমানের প্রথম স্ত্রীর বড় ছেলে । সজিবের জন্মের সময় এক মেয়ে রেখে মারা যান মজিবর রহমানের প্রথম স্ত্রী । পরে দ্বিতীয় বিবাহ করেন তিনি। সেখানেও তার এক ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে । সংসারে বড় ছেলে হওয়ায় গত ১৪ মে মোরেলগঞ্জের চর হোগলাবুনিয়া গ্রামে পারিবারিক ভাবে বিবাহ করান সজিবকে। সজিবের সদ্য বিবাহিত স্ত্রী রেশমা আক্তার (১৭) কান্নাজড়িত কণ্ঠে জানান, সকালে আমি রান্না করি, এর ফাঁকে একবার এসে আমার স্বামীকে ডাক দিয়েছি তখন সাড়া দেয়নি ।

পরবর্তীতে রান্না শেষ হলে খেতে ডাকলে তখও কোনো সাড়া দেয়নি সজিব। পরে গিয়ে দেখি আড়ার সাথে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঝুলে আছে । শরণখোলা থানার অফিসার ইনচার্জ এসকে আবদুল্লাহ আল সাঈদ বলেন, সজিবের লাশ ময়না তদন্তর জন্য বাগেরহাট মর্গে পাঠানো হবে । রিপোর্ট পেলে জানাযাবে এর আসল ঘটনা ।