বাগেরহাটে ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

 মাহফুজুর রহমান বাপ্পী, বাগেরহাট প্রতিনিধি : ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে বাগেরহাটের উপকূলীয় অঞ্চল শরণখোলায় অবস্থানরত ৩টি ফিসিং ট্রলারসহ বেশ কয়েকটি মাছধরা নৌকার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে । এছাড়াও ভেঙে গেছে কাচা ঘরবাড়িসহ অসংখ্য গাছপালা । সাউথখালী গাবতলা অংশের রিংবাঁধ ভেঙে গিয়ে প্লাবিত হয়েছে ৩টি গ্রাম । সমুদ্র থেকে আসা অতিরিক্ত লবন পানি বাঁধ ভেঙে এলাকায় ঢুকে পরায় ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলে জানান সেখানকার কৃষকরা।
এরই মধ্যে বৃহস্পতিবার সকালে (বাগেরহাট-৪) আসনের সংসদ সদস্য এ্যাডঃ আমিরুল আলম মিলন ভাঙন কবলিত শরণখোলা উপজেলার সাউথখালী এলাকা পরিদর্শন করেছেন । একইদিন বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক কে এম মামুনুর রশিদ আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থ রায়েন্দা বাজার ও সাউথখালীর বেশ কিছু পরিবারের মাঝে খাদ্য ও ঢেউটিন বিতরণ করেন । শরণখোলা উপজেলা মৎস সমিতির সভাপতি আবুল হোসেন জানান, ঘূর্ণিঝড় আম্পানের সিগনাল শুনে সমুদ্র থেকে রায়েন্দা খালে এসে অবস্থান নেয় স্থানীয় বেশ কয়েকটি ট্রলার । এর মধ্যে বুধবার রাতের ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে তিনটি ট্রলার ও বেশ কয়েকটি নৌকা পুরাপুরি ভেঙে যায় ।
এতে ট্রলার মালিক রায়েন্দা বাজারের পূর্বমাথায় বসবাসরত রুশু গরামি একেবারে ভেঙে পড়েন । রুশু গরামী জানান, আমি অনেক কষ্ট করে ধার দেনা হয়ে দুইবছর আগে এই ফিসিং ট্রলারটি বানাই । এই ট্রলার থেকেই আমার সংসার চলে । আমার ছেলে মেয়েদের লেখাপড়াসহ যাবতীয় খরচ মেটাই সাগরে মাছ ধরে । এখন আম্পানে আমার ট্রলারটি সম্পূর্ণ ভেঙে গেছে । সামনে আষাঢ়ের মৌসুম, কি নিয়ে আমি সাগরে যাবো । আমার তো সবই শেষ হয়েগেছে । একই এলাকার বাসিন্দা ধলু হাওলাদার জানান, র্ঘর্ণিঝড় আম্পানে আমার দুইটি ফিসিং ট্রলার ও একটি নৌকা ভেঙে গেছে । দশ লাখ টাকার দেনা নিয়ে এখন আমি নিঃস হয়ে গেছি ।
এছাড়া এলাকার বিভিন্ন ইউনিয়ন ঘুরে দেখাগেছে গাছপালা ও ফসলি জমির ফসল নষ্ঠ হয়ে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে । তবে, স্থানীয় সংসদ সদস্য এ্যাডঃ অমিরুল আলম মিলন বলেন, এলাকা ঘুরে দেখেছি, নতুন করে বেড়িবাঁধ নির্মান করা হবে ও ক্ষতিগ্রস্থ সকলকে পর্যায়ক্রমে সহায়তা প্রদান করা হবে ।