বাগেরহাটে অভিযোগ অস্বীকার করে মহিলা সদস্যের সংবাদ সম্মেলন

মাহফুজুর রহমান বাপ্পী, বগেরহাট জেলা প্রতিনিধি: বাগেরহাটের শরণখোলায় নির্বাচনে পরাজিত প্রতিপক্ষ মোসাঃ নাছিমা মেগমের আনীত ফেয়ার প্রাইজের প্রায় ২৬ মেট্রিক টন চাল আত্মসাতের কাল্পনিক তথ্য বানোয়াট ও বিত্তিহীন বলে দাবি করে শরণখোলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছে সাউথখালী ইউনিয়নের (সংরক্ষিত মহিলা সদস্য-১,২ ও ৩) আরিফুন্নাহার বিউটি ।

০১ জুলাই (বুধবার) সন্ধ্যায় সংবাদ সম্মেলনে আরিফুন্নাহার বিউটি বলেন,আমার নিবার্চনী প্রতিদ্বন্দ্বী ও পরাজিত মোসাঃ নাছিমা বেগম আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা কাল্পনিক ও বানোয়াট তথ্য দিয়ে উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ করেছেন । যাহার আদৌ কোনো সত্যতা নাই ।

অভিযোগে ৮/১০ জনের নাম উল্লেখ করলেও সুবিধাভোগী ওই ব্যক্তিরা প্রতিমাসে চাল উত্তোলন করে ভোগ করেছেন । যার প্রমাণ হিসেবে ওইসকল সুবিধাভোগীরা লিখিত প্রত্যয়ন পত্র দিয়ে স্বীকার করেছেন । এছাড়া আমার স্বামীর বিরুদ্ধে যে অভিযোগ দেওয়া হয়েছে তার কোনো সত্যতা নাই । যেহেতু এর কোনো সত্যতা নাই সেহেতু সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যানও বিষয়টি নিয়ে কোনো অভিযোগ করেননি। আসলে আমার নিবার্চনী প্রতিদ্বন্দ্বী নাছিমা বেগম পরাজিত হওয়ার জ্বালা সহ্য করতে না পেরে এ ধরনের মিথ্যা অভিযোগ উত্থাপন করেছেন ।

যাদের নিয়ে অভিযোগ করেছে, রেজাউল,খগেন্দ্রনাথ মন্ডল,গৌতম মজুমদার,ইউনুচ আলী, নাছির, ইউনুচ পহলান ও আঃ রাজ্জাক হাওলাদার স্ব স্ব প্রত্যয়নের মাধ্যমে তারা চাল উত্তোলন করেছেন বলে স্বীকার করেছেন। প্রকৃতপক্ষে ১৮জন সুবিধাভোগীর কার্ড হারিয়ে ফেলায় তার পরিবর্তে তাদের জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি জমা দিয়ে চাল উত্তোলন করেছেন । যেখানে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর রয়েছে । কিন্তু আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে মিথ্যা তথ্য দিয়ে সমাজে ও আমার নিবার্চনী এলাকায় হেয় প্রতিপন্ন করা হয়েছে ।

এ ব্যাপারে সাউথখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মোজাম্মেল হোসেন বলেন, উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তার নির্দেশে যাদের পরিবারে সরকারী ভাতার একাধিক কার্ড থাকবে তারা ফেয়ার প্রাইজের চাল পাবেনা । সেক্ষেত্রে যাদের কার্ড নাই নতুন তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করে তাদের চাল দেওয়া হচ্ছে ।