বাইপাস সড়কের দু’পাশে পাহাড় কেটে প্লট তৈরি, চলছে বেচাকেনা

মোঃ রাশেদ, চট্টগ্রাম প্রতিনিধিঃ  করোনায়ও থেমে নেই চট্টগ্রামের পাহাড় কাটা। নগরীর বায়েজিদ ফৌজদারহাট বাইপাস সড়কের দুই পাশে পাহাড় কাটা নিয়ে ৪ পর্বের ধারাবাহিকে আজ ১ম পর্ব চট্টগ্রামের বায়েজিদ-ফৌজদারহাট বাইপাস সড়কের দু’পাশে চলছে পাহাড় কাটা প্রতিযোগিতা। পাহাড় কেটে তৈরি করছে প্লট।

আর এই প্লট বিক্রি হচ্ছে ৩০-৫০ হাজার টাকা। এসব প্লটগুলো বিক্রি করছে স্থানীয় কিছু ভূমিদস্যু। এসব জমির কোনো নিবন্ধন হয় না। সংগঠনের সদস্যদের বিক্রয় করা হয় এসব প্লট। বিভিন্ন জেলা থেকে আগত ছিন্নমূল আর নিম্ম আয়ের মানুষরাই কিনছে এসব প্লট। সরজমিনে দেখা যায়, বায়েজিদ  ফৌজদারহাট বাইপাস সড়কে ৬নং ব্রিজের দু’পাশে পাহাড় কেটে ঘরবাড়ি দোকান পাট নিমার্ণ করছে শ্রমিকরা।

তাদের সাথে কথা বলে জানা যায় ৩৫ মামলার আসামী ছিন্নমূল বস্তাবাসী সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ মশিউর রহমান, মনির হোসেন ওরপে ভূমিদস্যু মনির, আলম প্রকাশ গলাকাটা আলম, জাহাঙ্গীর প্রকাশ গিটঠু জাহাঙ্গীর, মো: হাসান সহ বেশ কয়েকজন। সংগঠনের সদস্য বানিয়ে তারপর তাদের কাছে প্লট গুলো বিক্রয় করেন এরা। এ বিষয়ে মশিউর রহমান জাগো টেলিভিশনকে বলেন, আমি পাহাড় কেটে প্লট বিক্রয় করিনি।

এসব করছে মনির হোসেনরা। ওরা করে আমার নাম ব্যবহার করছে। প্রতিবেদকের কাছে ওনার স্বাক্ষর সহ প্লট বিক্রির সদস্য স্লিপ আছে বললে ওনি তাও অস্বীকার করে। মনির হোসেন পাহাড় কেটে তৈরি করছে মুরগির খামার ও কেয়ার টেকার থাকা ঘর। এ বিষয়ে তিনি বলেন, পাহাড় কাটার সাথে প্রশাসনের কিছু লোকও জড়িত। তাদের নাম জানতে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান এবং নিজে কোন পাহাড় কাটাচ্ছেন না বলে জানান।

এ দিকে মো: হাসান পাহাড় কেটে তৈরি করছেন রেস্তোরা ও খাবার হোটেল। পাহাড় কাটা শেষ এখন চলছে নির্মাণ কাজ। তিনিও অস্বীকার করেন পাহাড় কাটা নিয়ে। অন্য কেউ কাটছেন বলেন জানান তিনি। স্থানীয়রা বলছে এ ভূমিদস্যু চক্র পরিবেশ অধিদফতর ও প্রশাসনের চোখকে ফাঁকি নির্বিচারে পাহাড় কাটছে। বর্ষার এ সময় পাহাড়ে ধ্বসে আশংকা করছে স্থানীয়রা।

জানা গেছে, ছিন্নমূলদের সামনে রেখে এভাবে সরকারি জমি দখল-বেদখল চলছে সীতাকুণ্ডের জঙ্গল ছলিমপুরের দুর্গম পাহাড়ি এলাকার পাশাপাশি বাইপাস সড়কে আশপাশ। মূলত বাইপাস সড়কটি সীতাকুণ্ড, আকরব শাহ এবং বায়েজিদ তিন থানার সীমান্ত এলাকায় । এক থানা অন্য থানার এলাকা বলে দায় এড়ানোর কারণে গত কয়েক বছরে বেশিভাগ পাহাড় দখল হয়ে গেছে।যা কেটে তৈরি করছে অনেকগুলো প্লট।

পুলিশের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পাহাড়ি এলাকায় দখল-বেদখলে ছিন্নমূলদের পেছন থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন কিছু প্রভাবশালী ভূমিদস্যু। এখন এখানে ন্যূনতম ৩০ হাজার টাকায় মিলছে খাসজমির প্লট। পাহাড় কেটে প্লট বানিয়ে ছিন্নমূলদের বসিয়ে দিচ্ছেন প্রভাবশালীরা। ছিন্নমূলদের অনেকে আবার নিজের নামেও প্লট কিনছে। নোয়াখালী, বরিশাল, রাজশাহীসহ বিভিন্ন অঞ্চলের লোকজন এখানে বসতি গড়েছে। র