বরিশালে যৌতুকের দাবীতে স্ত্রীকে নির্যাতন।গ্রেফতার স্বামী

খোকন আহম্মেদ হীরা, গৌরনদী প্রতিনিধি: যৌতুকের দাবীতে জেলার আগৈলঝাড়া উপজেলার রত্মপুর গ্রামের এক গৃহবধূকে হত্যার রেষ কাটতে না কাটতেই পাশ্ববর্তী বেলুহার গ্রামে যৌতুকের দাবীতে ইসরাত জাহান পলি (৩০) নামের এক গৃহবধুকে অমানুষিক নির্যাতনের আরেকটি লোমহর্ষক ঘটনা ঘটেছে।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে থানায় মামলা দায়েরের পর তাৎক্ষনিক পুলিশ অভিযান চালিয়ে নির্যাতনকারী পাষন্ড স্বামীকে গ্রেফতার করেছে। এজাহার ও নির্যাতিতা গৃহবধু সূত্রে জানা গেছে, ১৪ বছর পূর্বে আগৈলঝাড়ার মোল্লাপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুস সালাম হাওলাদারের কন্যা ইসরাত জাহান পলির সাথে পাশ্ববর্তী বেলুহার গ্রামের মৃত মৌজে আলী সেরনিয়াবাতের পুত্র পল্লী চিকিৎসক রুহুল আমীনের সামাজিকভাবে বিয়ে হয়।

দাম্পত্য জীবনে তাদের একটি পুত্র ও একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। অভিযোগে জানা গেছে, রুহুল আমীন বিয়ের পর থেকেই স্ত্রী ইসরাত জাহানকে তার বাবার বাড়ি থেকে তিন লাখ টাকা যৌতুক আনার জন্য চাঁপ প্রয়োগ করে আসছিলো। দাবিকৃত টাকা না দিলে সে দ্বিতীয় বিয়ের হুমকি প্রদর্শন করে।

এনিয়ে তাদের দাম্পত্য কলহ লেগেই ছিলো। গত এক বছরপূর্বে ইসরাত জাহানের অনুমতি না নিয়েই শারমিন বেগম নামের এক নারীকে দ্বিতীয় বিয়ে করে বাড়িতে নিয়ে আসে রুহুল আমীন। এরপর থেকেই প্রথম স্ত্রী ইসরাত জাহানকে তাড়িয়ে দেবার জন্য শারিরিক নির্যাতন শুরু করে পাষন্ড রুহুল আমীন।

তারই ধারাবাহিকতায় গত ২৪ মে রাতে পূর্ণরায় যৌতুকের দাবিকৃত টাকার জন্য ইসরাত জাহান পলিকে অমানুষিক নির্যাতন করে তিনদিন ঘরের মধ্যে আটকে রাখে রুহুল আমীন। খবর পেয়ে ২৭ মে বিকেলে ইসরাত জাহান পলির বাবার পরিবারের সদস্যরা আটকাবস্থায় তাকে (পলি) মুমূর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করেন।

এ ঘটনায় নির্যাতিতার চাচা নুরুল ইসলাম হাওলাদার বাদি হয়ে আগৈলঝাড়া থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলার তদন্তকারী অফিসার এসআই নাসির উদ্দিন জানান, মামলা দায়েরের পর অভিযান চালিয়ে রুহুল আমীন সেরনিয়াবাতকে গ্রেফতার করা হয়েছে।