বরিশালে করোনার প্রকোপ বাড়লেও কমছে না যান চলাচল; নগরীজুড়ে সড়কে যানজট

প্রিন্স তালুকদার, বরিশাল প্রতিনিধি : বরিশাল নগরীর রুপাতলী ও চৌমাথা সহ প্রত্যেকটি সড়কে দিন দিন বেড়েই চলেছে যানজট‌। গাড়ি চালকরা বাংলাদেশ প্রচলিত ট্রাফিক আইনের তোয়াক্কা না করেই নিজেদের ইচ্ছামত যতযত্র গাড়ি পার্কিং করে যানজটের সৃষ্টি করছেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যাচ্ছে, রুপাতলী ও চৌমাথা এলাকায় সিএনজি, নীল রঙের গ্যাসের গাড়ি, মাহেন্দ্র ও হলুদ অটোরিকশা অর্থাৎ হি হুইলার জাতীয় সকল প্রকার গাড়ি রাস্তায় পার্কিং করে যানজটের সৃষ্টি করছেন। সালাম নামে একজন যাত্রী যানান, রুপাতলী ও চৌমাথা এলাকায় যানযটের কারনে সঠিক সময়ে আমারা গন্তব্যে পৌঁছাতে পারিনা। আমরা যাত্রীরা ট্রাফিক পুলিশ এবং শ্রমিক সংগঠনের কতৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ড্রাইভার জানান, বরিশালে গাড়ি পার্কিং করার জন্য তেমন কোন সু ব্যাবস্থা নেই। আমাদের সংগঠনের পক্ষ থেকে যদি চৌমাথা ও রুপাতলী এলাকায় ট্রাফিক পুলিশকে সহায়তা করে যানজট কমানোর জন্য যদি স্বেচ্ছাসেবক নিযুক্ত করলে যানযট কমানো সম্ভব হত‌।

এবিষয়ে বরিশাল জেলা ও মহানগর ব্যাটারীচালিত অটোরিকশা শ্রমিক কল্যাণ সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মোঃ লতিফ সিকদার (লেদু) বলেন, আমাদের সংগঠনসহ সকাল শ্রমিক সংগঠনের পক্ষ থেকে যদি এসব এলাকায় ট্রাফিক পুলিশকে সহায়তা করার স্বেচ্ছাসেবক দেওয়া হয়, তবে যানজট কমানো সম্ভব। বরিশাল জেলা মিশুক, সিএনজি ও এলপি গ্যাস চালিত অটোরিকশা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সবুজ হাওলাদার বলেন, নগরীর সড়কে যানযট নিরসনে আমরা সার্বক্ষণিক ট্রাফিক পুলিশের সঙ্গে আছি।

এবিষয়ে বরিশাল মেট্রোপলিটন ট্রাফিক পুলিশের এসি মুঠোফোনে জানান, ট্রাফিক পুলিশ সবসময় যানজট নিরসনে কাজ করে যাচ্ছেন। খুব শ্রীঘ্রই যানযট নিরসনে শ্রমিক সংগঠনের সাথে আলোচনা করে কার্যকরী ভূমিকা নেয়া হবে।