বঙ্গবন্ধু পুত্র শেখ জামালের ৬৮তম জন্মদিন আজ

আজ ২৮ এপ্রিল; জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর দ্বিতীয় পুত্র শেখ জামালের ৬৮তম জন্মদিন। করোনাভাইরাস-কবলিত মুজিববর্ষে তার জন্মদিন

আমরা গৌরবের সঙ্গে উদযাপন করতে পারছি না কিন্তু একজন মুক্তিযোদ্ধা,বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর গর্বিত সদস্যকে আমরা স্মরণ করতে পারছি।

১৯৫৪ সালের এদিনে তিনি টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। শেখ হাসিনার প্রবন্ধ পড়ে জানা যায়, মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে গৃহবন্দি ছিলেন।
কিন্তু তিনি পালিয়ে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিতে সক্ষম হন এবং বিজয়ের পর সগৌরবে ফিরে আসেন নিজগৃহে।

১৯৫৪ সালের ১০ মার্চ সাধারণ নির্বাচনে যুক্তফ্রন্ট বিপুল ভোটে জয়ী হয়ে ২ এপ্রিল মন্ত্রিসভা গঠন করে এবং ১৪ মে বঙ্গবন্ধু মন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন।

দুর্ভাগ্য হলো, ৩০ মে তিনি পুনরায় গ্রেপ্তার হন। সাধারণ মানুষকে শোষণ-বঞ্চনা থেকে মুক্তির আলোয় আনতে চেয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু।

পরিবার-সন্তানাদি এবং আত্মীয়স্বজন ছেড়ে একজন রাজনৈতিক বন্দি হিসেবে দিনের পর দিন কারাগারে কাটানো

যে কষ্টের তা ভুক্তভোগী মুজিব উপলব্ধি করেছেন তিল তিল করে- রাজনৈতিক কারণে একজনকে বিনা বিচারে বন্দি করে রাখা আর

তার আত্মীয়স্বজন ছেলেমেয়েদের কাছ থেকে দূরে রাখা কত যে জঘন্য কাজ তা কে বুঝবে? মানুষ স্বার্থের জন্য অন্ধ হয়ে যায়।

ঠিক এরকম অনেক দিন গেছে যখন শিশু শেখ জামালকে নিয়ে বঙ্গমাতা তার দুঃসময় অতিবাহিত করেছেন।

তবে এর পরই সকলে মিলে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে ঢাকায় বসবাস শুরু করেন। শেখ জামাল ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল থেকে

ম্যাট্রিক ও ঢাকা কলেজ থেকে ইন্টারমিডিয়েট পাস করেন। পরিবারের সাংস্কৃতিক পরিবেশে বেড়ে ওঠা শেখ জামাল

গিটার শেখার জন্য একটি প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হয়েছিলেন এবং একজন ভালো ক্রিকেটার ছিলেন।

বঙ্গবন্ধুকে অধিকাংশ সময় জেলে থাকতে হয়েছিল বলে বঙ্গমাতা এবং বড় বোন শেখ হাসিনা শেখ জামালকে ছোটবেলা থেকে দিকনির্দেশনা দিয়ে গড়ে তুলেছিলেন।

ধানমন্ডি ৩২ নম্বরের নিজেদের বাড়িতে অবস্থান করেই তার রাজনৈতিক চেতনা গড়ে ওঠে। বঙ্গবন্ধু ৩২ নম্বর থেকে

১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে গ্রেপ্তার হবার আগেই পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে আত্মগোপন করেন শেখ জামাল।

পরবর্তী সময়ে পাকিস্তানিদের হাতে সকলে গ্রেপ্তার হলে ধানমন্ডি ১৮ নম্বর রোডের বাড়িতে গৃহবন্দি অবস্থায় ছিলেন।

সেখান থেকে পালিয়ে গিয়ে তিনি মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। যুদ্ধের ময়দানে কিংবা পালানোর সময়  পাকিস্তানি সেনাদের হাতে ধরা পড়লে তার মৃত্যু ছিল অনিবার্য।

কিন্তু তিনি ছিলেন পিতার মতো নির্ভীক ও দেশপ্রেমের মূর্ত প্রতীক। তিনি পাকিস্তানি পাহারাদারদের চোখ ফাঁকি দিয়ে

৫ আগস্ট পলায়ন করে ভারতের আগরতলা চলে যান। সেখান থেকে কলকাতা হয়ে পৌঁছান উত্তর প্রদেশের কালশীতে।

মুজিব বাহিনীর ৮০ জন নির্বাচিত তরুণের সঙ্গে ২১ দিনের বিশেষ প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে এসে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন।

তিনি ছিলেন ৯ নম্বর সেক্টরের যোদ্ধা। রাইফেল কাঁধে অসীম সাহসের সঙ্গে পাকিস্তানি শত্রুর মোকাবিলা করে দেশকে মুক্ত করেন তিনি।

স্বাধীন বাংলাদেশে ১৮ ডিসেম্বর ফিরে আসেন বঙ্গমাতা এবং শেখ হাসিনাসহ ভাইবোনদের কাছে। উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা দূর হয়।

ওই দিন বিকেলে মুক্তিযোদ্ধাদের স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম জনসভায়ও যোগ দেন তিনি।

১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু ফিরে এলে পিতার কাছে সামরিক পোশাকেই অন্য দুই ভাই শেখ কামাল ও শেখ রাসেলসহ উপস্থিত ছিলেন শেখ জামাল।

স্বাধীনতার পর বাংলাদেশ সেনাবাহিনী পূর্ণাঙ্গরূপে গঠিত হলে শেখ জামাল সেনাবাহিনীর লংকোর্চের প্রথম ব্যাচের কমিশন্ড অফিসার হন।

লন্ডনে লেখাপড়ার পরে তিনি লেফটেন্যান্ট হন। এক গবেষক লিখেছেন-

“শেখ জামাল পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মা বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের আশীর্বাদ নিয়ে যোগ দিয়েছিলেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে।

পেশাগত দক্ষতা ও আন্তরিকতায় মুগ্ধ করে রেখেছিলেন সেখানে সবাইকে। সৈনিক থেকে সিনিয়র অফিসার, সবারই হয়ে উঠেছিলেন নয়নমণি।

কাজের প্রতি একনিষ্ঠতা আর অহংকারহীন জীবনযাপনে সবাইকে আপন করে নিতে তার তুলনা মেলানো প্রায় অসম্ভব।

আর সেই কারণেই তিনি তার পরিচিতদের কাছে হয়ে আছেন ইতিহাসের উজ্জ্বল অংশ।”

তিনি যুক্তরাজ্যের ‘রয়েল মিলিটারি একাডেমি স্যান্ডহার্স’-এ প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। সেখান থেকে কমিশন লাভ করে

পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে কর্মকুশলতার স্বাক্ষর রাখতে সক্ষম হন। সাবেক যুগোশ্লাভিয়ার রাষ্ট্রনায়ক

মার্শাল টিটোর সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর সাক্ষাৎ হয় ১৯৭৩ সালে ন্যাম সম্মেলনে যোগ দেবার সময়। সেই সূত্রে তিনি যুগোশ্লাভিয়ায় শেখ জামালকে পাঠিয়েছিলেন।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট যখন হত্যার শিকার হন তখন শেখ জামালের পরিচয় দেশ-বিদেশে ছড়িয়ে গেছে। তিনি

নির্মম হত্যাকাণ্ডের শিকার হন সেই সেনাবাহিনীরই একটি অংশের হাতে, যারা মনেপ্রাণে পাকিস্তানি ও আমেরিকার মদতপুষ্ট গোষ্ঠী ছিল।

এই মুক্তিযোদ্ধা সেনা অফিসারের রক্তপাত যে সেনাবাহিনীর সদস্যরা করেছিল, তাদের সেনা আইনে বিচার করতে ব্যর্থ হয়েছিলেন সে সময়ের সেনাপ্রধান।

শহিদ শেখ জামাল শুয়ে আছেন বনানী কবরস্থানে, তার পাশেই আছেন স্ত্রী রোজী জামাল। যিনি ওই রাতেই শহিদ হয়েছিলেন সবার সঙ্গে।

তাদের বিয়ে হয়েছিল আগের মাসে ১৭ জুলাই। ঘাতকের বুলেট তাদের স্মৃতিকে বিলোপ করতে পারেনি বরং মৃত্যু অমর করেছে তাদের অবদানকে।

৬৮তম জন্মবার্ষিকীতে কোনো অনুষ্ঠান করতে না পারলেও শেখ জামাল বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একজন গর্বিত সদস্য হিসেবে এ দেশে সব সময় স্মরণীয় হয়ে থাকবেন।