বগুড়ার শেরপুরে ইজিবাইক ছিনতাই করতেই বন্ধুকে খুন করে বন্ধু

 নিয়াজ মোর্শেদ নাইম, দুপচাঁচিয়া-আদমদীঘি প্রতিনিধি: অটোরিক্সা চালক মিনহাজকে (২২) খুনের পর গুম করে রাখা মিনহাজের মরদেহ বগুড়ার শেরপুর উপজেলার জোরগাছা এলাকার ধান ক্ষেত থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

ছিনতাই নাটক সাজাতে গিয়ে গ্রেফতার হওয়া খুনি ফজলে রাব্বীর দেয়া তথ্যের উপর ভিত্তি করে উপজেলার সুঘাট ইউনিয়নের জোড়গাছা গ্রামের একটি ধান ক্ষেত থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। ১ অক্টোবর বৃহস্পতিবার দুপুরে ইজিবাইক চালক মিনহাজ শেখ (২২) এর লাশ উদ্ধার করেছে শেরপুর থানা পুলিশ। এ ঘটনায় খুনি বন্ধু রাব্বি (২২) কে আটক করা হয়েছে।

বগুড়া পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভুঞা বলেন, গ্রেফতারকৃত ফজলে রাব্বী পুলিশকে জানিয়েছে, মিনহাজ তাদের পাশের গ্রামের বাসিন্দা। মিনহাজ তাকে মাঝে মধ্যেই ব্ল্যাক মেইল করত। এর জের ধরেই তাকে খুনের পরিকল্পনা করে ফজলে রাব্বী। ঘটনার বিবরণে জানা যায়, বগুড়ার ধুনট উপজেলার মথুরাপুর ইউনিয়নের বিশ্ব হরিগাছা গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে ফজলে রাব্বি পাশের গ্রামের তার বন্ধু মোজাদ্দারের ছেলে মিনহাজের ইজিবাইক নিয়ে গত ২৯ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার বিকেলে বেড়ানোর কথা বলে শেরপুর উপজেলার সুঘাট ইউনিয়নের আওলাকান্দি গ্রামে আসে।

পূর্বপরিকল্পনানুযায়ী ফজলে রাব্বি দোকান থেকে কোমল পানীয় কিনে তাতে ৮-১০টি ঘুমের ট্যাবলেট মিশিয়ে দেয়। কোমল পাণীয় পান করে মিনহাজ অচেতন হয়ে পড়লে এই সুযোগে রাব্বি বন্ধু মিনহাজকে উপর্যুপুরি ছুরিকাঘাত করে হত্যা করে। এমনকি লাশ যেন কেউ না চিনতে পারে সেজন্য ধারালো চাকু দিয়ে মুখের চামড়া কেটে ফেলে। এরপর মরদেহ ধানক্ষেতে লুকিয়ে রেখে অটোরিক্সাটি বিভিন্ন ভাংগাড়ীর দোকানে বিক্রির চেস্টা করে সক্ষম না হলে গাড়ীটি ফেলে রেখে বাড়ি ফিরে যায়।

পরে ঘটনার মোড় ঘোরাতে নিজের পায়ে নিজেই ছুরিকাঘাত করে ৯৯৯ এ ফোন করে বলে যে ছিনতাইকারীরা আমার বন্ধু মিনহাজকে খুন করে তার ইজিবাইক ছিনতাই করে নিয়ে গেছে। আমি বাঁধা দিলে আমাকে চাকু মেরে ফেলে রেখে গেছে। ৯৯৯ থেকে তাকে থানায় গিয়ে জিডি করতে বললে রাব্বি পরদিন বুধবার বিকেলে শেরপুর থানায় হাজির হয়। সেখানে নিজেকে খুনের দায় থেকে আড়াল করতে ছিনতাই নাটক সাজায়। পুলিশের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে এক পর্যায়ে সত্য ঘটনা বলে দেয় রাব্বি।

তখন তাকে শেরপুর থানা পুলিশ আটক করেন। রাব্বির দেয়া তথ্যমতে বগুড়া পুলিশ সুপার মো. আলী আশরাফ ভূঞা (বিপিএম বার), অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) আব্দুর রশিদ, শেরপুর সার্কেল মো. গাজিউর রহমান, জেলা ডিবি পুলিশের ইনচার্জ আসলাম হোসেন, শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদসহ সঙ্গীয় ফোর্স ১ অক্টোবর বৃহস্পতিবার দুপুরে সুঘাট ইউনিয়নের জোরগাছা গ্রামে অভিযান চালিয়ে ধানের জমির ভিতর থেকে মিনহাজের লাশ উদ্ধার করেছেন।

এ ব্যাপারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেরপুর সার্কেল মো. গাজিউর রহমান বলেন, রাব্বির কোন আয় রোজগার ছিলনা। তাই সে বিভিন্ন অপরাধে জরিয়ে পরে। এরই ধারাবাহিকতায় পরিকল্পনা করে তার বন্ধু মিনহাজের ইজিবাইক ছিনতাই করার উদ্দেশ্যে তাকে সুঘাট এলাকায় নিয়ে এসে খুন। লাশ ময়না তদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে। রাব্বির বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। নিয়াজ মোর্শেদ নাইম দুপচাঁচিয়া-আদমদীঘি উপজেলা প্রতিনিধি