ফেসবুকের এআর ইফেক্ট তৈরি করল বাংলাদেশি দুই তরুণ

অনলাইনে পহেলা বৈশাখ উদযাপন করতে ফেসবুকের আনা অগমেন্টেড রিয়েলিটি (এআর) ফিল্টারটি যৌথভাবে তৈরি করেছে বাংলাদেশের ডেভেলপার ইশরাত উর্মি ও শিল্পী আরাফাত করিম।

বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) ফেসবুক থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

করোনা মহামারির কারণে এবারও বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে ভাটা পড়ে। এআর ইফেক্টের মাধ্যমে বাঙালিরা ঘরে বসেই তাদের বন্ধুবান্ধব ও আত্মীয়স্বজনদের সঙ্গে বর্ষবরণের আনন্দ ভাগাভাগি করার সুযোগ পেয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন দেশের স্থানীয় ক্রিয়েটরদের সঙ্গে কাজ করে থাকে।

এটিই প্রথম এআর ফিল্টার যা ফেসবুক বাংলাদেশি ডেভেলপার এবং শিল্পীর সহযোগিতায় তৈরি করল।

তরুণ ডেভলপার ইশরাত উর্মি এবং শিল্পী আরাফাত করিমের তৈরি ইফেক্টে আছে পহেলা বৈশাখের মঙ্গল শোভাযাত্রা, মাস্ক ও আলপনা।

উর্মি বাংলাদেশের ফেসবুক ডেভেলপার সার্কেলের একজন সদস্য। ফেসবুক ডেভেলপার কমিউনিটির

সদস্যরা দক্ষতা অর্জনের জন্য অন্যান্য দেশের ডেভেলপারদের সঙ্গে যোগাযোগের সুযোগ পান।

বাংলাদেশের ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার ফেসবুক পেজে ভিডিও শেয়ার করে এই উদ্ভাবনী উদ্যোগের জন্য ফেসবুক ও ক্রিয়েটরদের অভিনন্দন জানিয়েছেন।

ফেসবুকের এআর ইফেক্টটি জয়া আহসান, তাহসান খান এবং শবনম ফারিয়ার মতো জনপ্রিয়

সেলিব্রিটিসহ অনেকেই ব্যবহার এবং শেয়ার করেছেন।

ফেসবুকের বিভিন্ন অ্যাপস বিশ্বজুড়ে মানুষকে সংযুক্ত করে এবং তারা যেখানেই থাকুক না কেন

সাংস্কৃতিক মুহূর্তগুলো পর্যবেক্ষণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নিতে সহায়তা করে।

বাংলাদেশে করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি পেয়েছে। করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে দেশে গত বুধবার (১৪ এপ্রিল) থেকে সপ্তাহব্যাপী কঠোর লকডাউন চলছে।

এই সময়ে বিভিন্ন অনলাইন প্ল্যাটফর্মগুলো মানুষকে একে অপরের সঙ্গে যুক্ত থাকতে সহায়তা করতে পারে।