ফরিদগঞ্জ উপজেলার গাজীপুর টু ধানুয়া ব্রিজ হতে পারে পর্যটন এলাকা

মোহাম্মদ বিপ্লব সরকার,  চাঁদপুর প্রতিনিধি:  চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ উপজেলার গাজীপুর -ধানুয়া সড়কের বড় ঝিলের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া সড়ক ও ব্রিজটি চাঁদপুর জেলার পর্যটনের অপার সম্ভাবন রয়েছে। এ ঝিলের সাথে নিবির সম্পর্ক রয়েছে ডাকাতিয়া নদীর। ডাকাতিয়া নদীর জোয়ার ভাটার পানি প্রবেশ করছে প্রতিনিয়ত।বিশাল জলরাশির মাঝ খান দিয়ে বয়ে গেছে ধানুয়া আর গাজীপুরের মিলনের সড়ক আর ব্রিজটি। স্থানীয় ও গাজীপুরের সাবেক মেম্বার সাইফুল ইসলাম জানান, ২০০১সালে ফরিদগঞ্জ থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন ডঃসামছুল হক ভূইয়া।

তখন তার কাছে গাজীপুর বাসী একটি সড়ক ও ব্রিজের দাবী জানান। তার কারন হলো ডাকাতিয়া নদী আর ঝিলের কারণে এ এলাকার মানুষ ফরিদগঞ্জ বা চাঁদপুর যাতায়াত করতে হতো নৌকা যুগে। সময় লাগতো অনেক বেশি। এ এলাকায় অনেক এমপি মন্ত্রী ছিল কিন্তু কেউ কোনো কাজ করেনি। আমরা সড়ক ও সেতুর জন্য বহু আন্দোলন সংগ্রাম করেছি। তাই সড়ক ও সেতু নির্মান হয়েছে। এতে করে পূর্বাঞ্চলের সাথে মেলবন্ধন সৃস্টি হয়েছে। স্থানীয়রা আরো জানায়, এখানে সেতু ও সড়ক নির্মান হওয়ায় পর্যটন এলাকা সৃস্টি হয়েছে।

চাঁদপুর ও আশপাশের এলাকা থেকে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ বিকেল হলে ভ্রমনের জন্য ব্যাক্তিগত গাড়ি নিয়ে ছুটে আসে। যে মাছের ঝিলের উপর দিয়ে সড়ক নির্মান হয়েছে সেই ঝিলের মৎস্য চাষি সাইফুল ইসলাম বলেন ২০০১ সালে এখানে মাছের প্রজেক্ট করে আসছি।  বছরে প্রায় ১৫কোটি টাকার মাছ উৎপাদন করা হয়। ঝিলের উপর দিয়ে রাস্তা ও ব্রিজ নির্মান করায় এর সৌন্দর্য ফুটে উঠেছে। এ  সৌন্দর্য আর প্রকৃতির অপরূপ দৃশ্য দেখতে প্রতিনিয়ত পর্যটকরা সেখানে বিকেলের পর থেকে ভীড় জমাচ্ছে। নিজে চোখে না দেখলে নয়না ভিরাম সৌন্দর্য উপলব্দি করা যাবে না।

কি ভাবে যাবেন গাজীপুরেঃ চাঁদপুর শহর থেকে যারা সেখানে যাবেন তারা চাঁদপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে সিএনজি যোগে যাবেন ধানুয়া বাজার। সি এন জজি রিজার্ভ ২শ থেকে আড়াইশ টাকার মধ্যে অথবা জনপ্রতি গেলে ৩৫/৪০ টাকা নিবে। আর যারা চাঁদপুরের অন্যান্য উপজেলা থেকে গাজীপুরে আসতে চান তারা সোজা ওয়ারলেস মোড়ে আসবেন। সেখান থেকে ধানুয়া বাজার সিএনজি পেয়ে যাবেন। ধানুয়া বাজার থেকে জনপ্রতি অটোতে ২০ টা করে আর রিক্সায় গেলে ১০০ টাকা ভাড়ায় গাজীপুর ব্রিজে যেতে পারবেন। ব্যাক্তিগত গাড়িতে ও যেতে পারবেন।