পাহাড়ি ঢলে ফের বন্যাকবলিত হয়েছে সিলেটের জৈন্তপুর ও গোয়াইনঘাটের বিভিন্ন এলাকা

সালমান শাহ্, গোয়াইনঘাট প্রতিনিধি: উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে ও স্থানীয় ভারি বর্ষণে ফের বন্যাকবলিত হয়ে পড়েছে সিলেটের সীমান্তবর্তী উপজেলা জৈন্তাপুুর ও গোয়াইনঘাটের বিভিন্ন এলাকা। গত মঙ্গলবার থেকে টানা ভারি বর্ষণ হওয়ায় ঢলের পানি বেড়ে জৈন্তাপু ও গোয়াইনঘাটের সিংহভাগ অঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

এতে বিভিন্ন সড়ক ডুবে গেছে। এ কারণে সড়কপথে সিলেট জেলা শহরের সঙ্গে গোয়াইনঘাট উপজেলার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, পাহাড়ি ঢলের পানি জাফলং এলাকার পিয়াইন নদ ও ডাউকি দিয়ে এলাকায় ঢুকছে। এদিকে পাহাড়ী ঢলে উপজেলার সাথে কয়েকটি গ্রামের যোগাযোগ প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। এর মধ্যে রয়েছে ১ নং নিজপাট ইউনিয়নের হর্নি, বাইরাখেল, গোয়াবাড়ী, নয়াবাড়ী, লক্ষীপ্রসাদ, ২ নং জৈন্তাপুর ইউনিয়নের বাউরভাগ, লামনীগ্রাম, কাটাখাল, মোয়াখাই, খারুবিল, ডুলটিরপাড়, বাওনহাওড়, শেওলারটুক, আমবাড়ী, লক্ষ্মীপুর, কেম্রী, চাতলারপাড়।

৩ নং চারিকাটা ইউনিয়নের পূর্ব লক্ষীপ্রসাদ, সরুলখেল, রামপ্রসাদ। ৪ নং দরবস্ত ইউনিয়নের সাতারখাই, মহাইল, লামা মহাইল, কানজর, সেনগ্রাম, পর্দনা, তেলীজুরী। এবং গোয়াইনঘাট উপজেলার পূর্ব জাফলং, আলীরগাঁও, রুস্তমপুর, লেঙ্গুড়া, তোয়াকুল, নন্দীরগাঁও ও পশ্চিম জাফলং ইউনিয়নের শতাধিক গ্রাম বন্যাকবলিত হয়ে পড়েছে। উপজেলার সদরের সঙ্গে জেলা শহরে যাতায়াতের দুটি সড়ক সারী-গোয়াইন ও সালুটিকর-গোয়াইনঘাট সড়ক প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা আরও জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে গোয়াইনঘাট উপজেলা যাতায়াতের প্রধান দুই সড়কে পানি ওঠে। পানি বাড়তে থাকায় দুপুরের পর থেকে এসব সড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। উপজেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, গোয়াইনঘাটে এবারের বর্ষা মৌসুমের শুরুতে এক দফা এবং গত এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি আরেক দফা বন্যাকবলিত হয়। গত মঙ্গলবার রাতে প্রবল বৃষ্টি হওয়ায় সকাল থেকে জাফলংয়ের পিয়াইন নদ ও ডাউকি নদী দিয়ে সীমান্তের ওপার থেকে পাহাড়ি ঢল নামা শুরু হয়।

শুক্রবার সকালের দিকে জৈন্তাপুরের সারী এলাকায় সারী নদীর পানি বেড়ে বাঘের সড়কের মুখ প্লাবিত হয়ে পড়ে। দুপুর ১২টার দিকে ওই সড়কের অন্তত ছয়টি স্থানে পানি উঠেছে। এতে সড়ক দিয়ে কোনো ধরনের যানবাহন চলাচল করছে না। উপজেলা প্রশাসন জানান বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে পুরো উপজেলা ফের বন্যাকবলিত হয়ে পড়বে।

আরো জানান, পানি উঠে সড়কের যেসব স্থানে যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে, সেখানে নৌকা দিয়ে মানুষ যাতায়াত করছে। এদিকে উপজেলা প্রশাসন সবকটি আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত রেখেছেন। পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রান সহয়তা প্রদানে উপজেলা প্রশাসন আন্তরিক রয়েছেন বলে জানান।