পঞ্চগড়ে সারের বাফার গুদামের উদ্বোধন

আতাউর রহমান, পঞ্চগড় প্রতিনিধি: পঞ্চগড়ে ১০ হাজার মেট্রিক টন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন সারের বাফার গুদামের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন। বৃহস্পতিবার পঞ্চগড় শহরে তাওফিকা ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড এর সহায়তায় ও সেনা কল্যান সংস্থার বাস্তবায়নে ১০ হাজার মেট্রিক টন ধারণ ক্ষমতা সমপন্ন এ বাফার গুদামের উদ্বোধন করা হয়।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, রেলপথ মন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন, পঞ্চগড়-১ আসনের সংসদ সদস্য মো. মজাহারুল হক প্রধান, বিসিআইসির চেয়ারম্যান মো. মোস্তাফিজুর রহমান, পঞ্চগড় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ¦ আনোয়ার সাদাত সম্রাট, জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন।

উল্লেখ্য, প্রত্যন্ত অঞ্চলে কৃষকদের মাঝে ইউরিয়া সার সরবরাহ ও নিরাপদ মজুদ নিশ্চিতকরণে শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীনে বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ কর্পোরেশন (বিসিআিইসি) এই গুদামটি নির্মাণ করে। প্রায় ৪ একর জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত এই গুদামটি নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ২৭ কোটি ৪৯ লাখ ৫৩ হাজার টাকা। বিসিআইসির চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান জানান,

১৩টি নতুন বাফার গোডাউন নির্মান প্রকল্পের প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয় ৬শ কোটি ২১ লাখ ৬০ হাজার টাকা। প্রকল্পের মেয়াদ ২০১৭ সালের জানুয়ারী থেকে ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত। প্রকল্পের নির্মাণ কাজ করছে সেনা কল্যাণ সংস্থা। এই প্রকল্পের আওতায় পঞ্চগড়, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, শেরপুর, যশোর, গাইবান্ধা, নীলফামারী, রাজবাড়ী, পাবনা, কিশোরগঞ্জ,

নেত্রকোণা, গোপালগঞ্জ, বরিশাল ও সুনামগঞ্জ জেলায় ১০ হাজার মে. টন ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন ১৩টি বাফার গোডাউন নির্মিত হচ্ছে। শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন, সার সংরক্ষণ ও বিতরণের সুবিধার জন্য দেশের বিভিন্ন জেলায় ১৩টি নতুন বাফার গোডাউন নির্মাণ’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় এই সারের বাফার গুদামটি নির্মাণ করা হয়।

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় ইউরিয়া সারের মজুদ ও সংরক্ষণ সুবিধা বৃদ্ধির জন্য বিসিআইসি কর্তৃক দেশে আরও ৩৪টি গুদাম নির্মাণ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। এগুলোর ধারণ ক্ষমতা ৫ লক্ষ ১০ হাজার মে. টন। এ প্রকল্প সমাপ্ত হলে আশা করা যায় দেশে সার সংরক্ষণের সমস্যা থাকবে না।  পঞ্চগড় প্রতিনিধি