নোয়াখালীর সেনবাগে সন্ত্রাসী হামলায় গুলিবিদ্ধ -১, আহত-১০, আটক -১

হাসান ইমান রাসেল, নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ  নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার বীজবাগ ইউনিয়নের বালিয়াকান্দি গ্রামে পুকুরে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসী হামলায় অস্ত্রধারীর গুলিতে ইকবাল হোসেন গুলিবিদ্ধ হয় ও হামলায় নারীসহ অন্তত ১০জন আহত হয়েছে।

এর মধ্যে গুলিবিদ্ধ ইকবালকে প্রথমে সেনবাগ সরকারি হাসপাতালে ও পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঘটনাটি ঘটে সোমবার দুপুরে বালিয়াকান্দী গোরফান মেম্বার/ হেঞ্জু বেপারী বাড়িতে।

ঘটনার বিবরণীতে জানা গেছে, উপজেলা ৮নং বীজবাগ ইউপির বালিয়াকান্দি গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য গোফরান মেম্বার ও বাড়ির অন্যদের যৌথ মালিকানা দুইটি পুকুরের পাড় ভেঙ্গে এক হয়ে যায়। এ অবস্থায় গোফরান মেম্বার কাউকে না জানিয়ে ওই পুকুরে মাছের পোনা ছেড়েছে বলে প্রচার করে পুকুরটি তার কাছে ইজারা দেওয়ার জন্য অন্যদের চাপ প্রয়োগ করে।

কিন্তু অন্য শরিকদাররা ইজারা দেবে না বলে পুকুরে মাছ ধরে হিস্যা হিসাবে ভাগ করে নিয়ে যায় । কিন্তু গোফরান মেম্বার তার ভাগের অংশের মাছ নেয়নি। এরপর সোমবার দুপুর ১টার দিকে গোফরান মেম্বারের নাতী রাহিম লোকজন নিয়ে ওই পুকুরে জাল ফেলে মাছ ধরার চেষ্টা করলে বাড়ি অন্য শরিকদাররা বাঁধা দেয়।

এতে উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় গোফরান মেম্বারের পক্ষের সোহাগ নামের একজন আহত হয়। পরে গোফরান মেম্বারের নাতী গোলাম মোস্তফা রাহিম পাশের সেবারহাট থেকে অস্রধারী সন্ত্রাসী ভাড়া করে নিয়ে এসে অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত হইয়া বাড়ির আলী করিমের বসতঘরে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর, লুটপাট ও এলোপাথাড়ি গুলি বর্ষণ করে।

রাহিমের গুলিতে ইকবাল হোসেন(২২) গুলিবিদ্ধ হয়। এছাড়া সন্ত্রাসী হামলায় মাঈন উদ্দিন(৩০), আবুল হোসেন(৩০), বাহাদুর (২৪) সহ অনন্ত ১০ জন আহত হয়। খবর পেয়ে সেনবাগ থানার এসআই মোঃ আল আমিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বেশকিছু আলামত সংগ্রহ করে ও গোফরান মেম্বারকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। এব্যাপারে যোগাযোগ করলে সেনবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবদুল বাতেন মৃধা জানান,ঘটনার পরপর পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে,থানায় মামলা হয়েছে।