নেত্রকোণার বারহাট্টায় ৩ নং সদর ইউনিয়ন নির্বাচনে নৌকার মাঝি হতে চান মনোরঞ্জন সরকার

মামুন কৌশিক, নেত্রকোণা প্রতিনিধিঃ নেত্রকোণার বারহাট্টা উপজেলার ৩ নং সদর ইউনিয়নের সামনের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকার মাঝি হতে চান বিশিষ্ট সমাজ সেবক ও ব্যবসায়ী মনোরঞ্জন সরকার। এলাকাবাসীর সূত্রে জানা যায় যে, মনোরঞ্জন সরকার ২০০৪ সাল থেকেই সাধারণ মানুষদের পাশে দাঁড়াচ্ছেন।এলাকার দুঃস্ত মানুষদের বিয়ে,চিকিৎসা,রাস্তাঘাট উন্নয়ন, মসজিদ, মন্দির নির্মাণ সহ বিভিন্ন ধর্মীয় আচার অনুষ্টানে সাধারণ মানুষদের পাশে সব সময় থাকেন মনোরঞ্জন সরকার ।
গরিব দুঃখী মানুষদের জন্য অত্যন্ত নিষ্টার সাথে কাজ করছেন এই সমাজ সেবক।গত মার্চ মাস থেকে করোনা পরিস্থিতি শুরু হলে তিনি প্রথমেই সমাজ সচেতনতা মূলক কার্যক্রম শুরু করেন।সচেতনতার অংশ হিসেবে সাধারণ মানুষদের মাঝে ৫০০০ মাস্ক বিতরণ করেন। বারহাট্টা উপজেলা চেয়ারম্যান কর্তৃক তৈরি গরিব মানুষদের সাহায্যমূলক প্রতিষ্টান বারহাট্টা ফাউন্ডেশনে ৫০০০০ টাকা দিয়েছিলেন তিনি।সেই সংকট সময়ে তিনি সদর ইউনিয়নের নয়টি ওয়ার্ডের প্রায় এক হাজার পরিবারকে দশ কেজি চাল সহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র বিতরণ করেন।লক ডাউনের কারণে যানবাহন বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ১৫০০ শ্রমিকের মাঝে নগদ ২০০ টাকা করে বিতরণ করেন। সদর ইউনিয়নের বয়স্ক সহ অন্যান ভাতা প্রাপ্তি প্রায় ৪০০০ মানুষদের নিজ খরচে সেচ্ছাসেবক দিয়ে রেজিস্ট্রেশন এর ব্যবস্থা করেন মনোরঞ্জন সরকার।
বারহাট্টা সদর ইউনিয়নের বাসিন্দা রতন চন্দ্র জানান যে, মনোরঞ্জন সরকার একজন ভাল মানুষ।এই যাবতকালে তিনিই একমাত্র ব্যাক্তি যিনি ব্যাক্তিগত উদ্দ্যোগে আমাদের সদর ইউনিয়নের নয়টি ওয়ার্ডে ১৫ আগষ্টের শোক দিবস উপলক্ষে দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করেছেন।বাংলাদেশ আওয়ামী নবীন লিগের বারহাট্টা উপজেলার সভাপতি হিরামন মানিক এই প্রতিবেদকে জানান যে, মনোরঞ্জন দাদা আমাদের অনেক ভালবাসেন।তিনি পূজা উপলক্ষে আমাদের উপজেলার সবগুলো পূজামন্ডবে সাহায্য করেন।তিনি বিভিন্ন ঈদেও সাধারণ মানুষদের জন্য শাড়ি,লুঙ্গি সহ ঈদের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র বিতরণ করেছেন।তিনি হিন্দু মুসলিম সবাইকেই সমান ভাবে ভাল বাসেন।আমরা সবাই চাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যেন নৌকার মাঝি হিসেবে মনোরঞ্জন দাদাকে নৌকা প্রতীক দেন আমাদের সদর ইউনিয়নের জন্য।
এই বিষয়ে বিশিষ্ট সমাজ সেবক মনোরঞ্জন সরকার জানান যে, আমি ২০০৪ সাল থেকেই বারহাট্টা সদর ইউনিয়নের মানুষদের পাশে রয়েছি এবং আমৃত্যু থাকব।যদি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে সামনের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন দেন তাহলে বারহাট্টা সদর ইউনিয়নের মানুষদের জীবন যাত্রার মান উন্নয়নের জন্য চেষ্টা করব।ইউনিয়নের সাধারণ মানুষদের কাউন্সিলিং এর মাধ্যমে কর্মক্ষেত্র তৈরি করব এবং মাদক মুক্ত ইউনিয়নে পরিণত করব।সর্বোপরি বারহাট্টা সদর ইউনিয়নটিকে একটি মডেল ইউনিয়নে রুপান্তর করার সর্বাত্মক চেষ্টা করব।