নেত্রকোণার বারহাট্টায় কৃষি বিভাগের উদ্দ্যোগে প্রথমবারের মত তৈরি হল ভাসমান বীজতলা

মামুন কৌশিক, বারহাট্টা প্রতিনিধি: নেত্রকোণার বারহাট্টা উপজেলা একটা বন্যা প্রবণ এলাকা।এলাকাটির প্রায় ৬০ থেকে ৬৫ ভাগ অঞ্চল নদীর অঅববাহিকায় অবস্থিত।দিনের পর দিন নদীর ধারণ ক্ষমতা কমে যাওয়া,জ্বলবায়ু পরিবর্তন এবং পাহাড় থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের কারণে প্রায় প্রতিবছর এই অঞ্চলের কৃষকদের দুই থেকে তিনবার বীজতলা তৈরি করতে হয়।
এতে তাদের সীমাহীন দূর্ভোগ আর আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়।কিন্তুু কৃষকদের সেই দুরবস্তা থেকে পরিত্রাণের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন বারহাট্টা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মুহাইমিনুর রশীদ।এ বিষয়ে বারহাট্টা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বলেন যে, বারহাট্টা উপজেলার কৃষিতে উন্নয়নের জন্য আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত। অাপদকালীন সময়ে বীজতলা তৈরিতে সম্ভাবনাময় প্রযুক্তি ভাসমান বীজতলা।
প্রারম্ভিক পর্যায়ে কষ্টকর ও ব্যয়বহুল হলেও অভ্যস্থায় নিশ্চয়ই সহজতর হবে। কৃষি বিভাগের কারিগরী সহায়তায় এবার বারহাট্টা উপজেলায় পানিতে ভাসছে গুটিকয়েক ভাসমান বীজতলা।যা কৃষিতে উপজেলায় এক নতুন সম্ভবনা তৈরি করবে।যদি সকল কৃষকরা এগিয়ে আসেন তাহলে বিষয়টা আরও সহজতর হবে।ভাসমান বীজতলা তৈরি করা এক কৃষক এই প্রতিবেদককে বলেন যে, দারুণ হয়েছে অন্তত খোরাকির ধান লাগানোর রোয়া (হালিচারা) তৈরি করার চমৎকার বুদ্ধিটা পাইলাম”। এটাই হয়তো আধুনিক প্রযুক্তি সম্প্রসারণ।তিনি সকল কৃষি কর্মকর্তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।