নাটোরে পাখি ব্যবসায়ীর ভ্রাম্যমানে অর্থদন্ড

সাজেদুর রহমান, নাটোর প্রতিনিধিঃ নাটোরের তেবাড়িয়া হাটে অধৈভাবে টিয়া পাখি ও মুনিয়া পাখি বিক্রয়ের অপরাধে নাসিম উদ্দিন (১৮) নামে এক যুবককে দুই হাজার টাকা অর্থদন্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত। একই সঙ্গে ছয়টি টিয়া ও একটি মুনিয়া পাখি উদ্ধার করার পর অবমুক্ত করা হয়েছে।

রোববার (২৯ নভেম্বর) দুপুর আড়াইটার সময় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে এসব পাখি অবমুক্ত করেন জেলা প্রশাসক মোঃ শাহরিয়াজ। এরআগে দুপুর ১টার সময় তেবাড়িয়া হাটে অভিযান চালিয়ে পাখিগুলো উদ্ধার করেন নাটোর সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোছাঃ রনী খাতুন। একই সঙ্গে অবৈধভাবে পাখি সংরক্ষণ ও বিপননেন দায়ে বিক্রেতাকে অর্থদন্ড দেয়া হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন নাটোর বন বিভাগের সহকারী বন সংরক্ষক মেহেদী-উজ-জামান। দন্ডপ্রাপ্ত নাসিম সিরাজগঞ্জ জেলার উল্লাপাড়া এলাকার মোহাম্মদ হোসাইন আলীর ছেলে। ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোছাঃ রনী খাতুন বলেন, মানুষের জন্যে কাজ করার পাশাপাশি জীব বৈচিত্র্য রক্ষায় যথাযথ ভূমিকা পালন করবে প্রশাসন।

সেই লক্ষ্য নিয়ে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। তিনি বলেন, বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইন-২০১২ এর ৩৮(১) ধারানুযায়ী পাখি বিক্রেতা নাসিমকে এই অর্থদন্ড প্রদান করা হয়েছে। জীব বৈচিত্র্য রক্ষা করতে এই ধরণের অভিযান অব্যাহত থাকবে।