নাটোরে আ’লীগ নেতা ডা: আয়নাল হত্যা মামলার রায়; ২ জনের ফাঁসি, ১১ জন খালাস

সাজেদুর রহমান, নাটোর প্রতিনিধিঃ নাটোরের আলোচিত বড়াইগ্রাম থানা আওয়ামীলীগ সভাপতি ডাঃ আয়নাল হক হত্যা মামলায় ১৩ আসামীর ২ জনকে মৃত্যুদন্ড এং ১১ জনকে খালাসের আদেশ দিয়েছে আদালত। আজ সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর নাটোরের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মোহম্মদ সাইফুর রহমান সিদ্দিক হত্যাকান্ডের ১৮ বছর পর এই রায় ঘোষনা করেন। মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত শামীম ও তোরাবকে আরো ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। তবে রাষ্ট্রপক্ষ ও মামলার বাদীসহ নিহতের পরিবার এই রায়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন।
দন্ডপ্রাপ্ত শামীম বড়াইগ্রাম উপজেলার মহিষবাঙ্গ গ্রামের পলান মোল্লার ছেলে এবং তোরাব একই গ্রামের বাহার উদ্দিন মোল্লার ছেলে। আদালত ও মামলার এজাহার সুত্রে জানাযায়, ২০০২ সালের ২৮ মার্চ রাত পোণে নয়টার দিকে বনপাড়া সাহেব পাড়ার ডাঃ আনছারুল হকের চেম্বার থেকে পুত্রবধু নাজমা বেগমকে রিক্সায় উঠিয়ে দিয়ে নিজে মোটর সাইকেলে ওঠার সময় থানা বিএনপির তঃকালীন সভাপতি ও ১৫ ফেব্রুয়ারীর সাংসদ এবং বনপাড়া পৌরসভার তৎকালীন প্রশাসক অধ্যক্ষ একরামুল আলমসহ স্থানীয় বিএনপির ১৭ নেতা কর্মী তার ওপর চড়াও হয়। এসময় তাকে রামদাসহ ধারালো অস্ত্র ও লোহার রড দিয়ে এলোপাতারি আঘাত করে রক্তাক্ত জখম করে ফেলে রেখে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পরদিন দুপুরে তিনি মারা যান। এঘটনায় নিহতের পুত্রবধু নাজমা বেগম বাদী হয়ে উপজেলা বিএনপির সভাপতি অধ্যক্ষ একরামুল আলম, উপজেলা যুবদলের তৎকালীন সভাপতি সাহের উদ্দিন সহ ১৭ বিএনপি নেতা -কর্মীকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। বিচারকাজ চলমান অবস্থায় মামলার প্রধান আসামী একরামুল আলম, সাহের উদ্দিন, আলামুদ্দীন ও সেন্টু মারা যায়। তাদের মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়ে ১৩ জনের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করে বিচারকাজ সম্পন্ন করা হয়।
১১ আসামীর উপস্থিতিতে বিচারক এই রায় ঘোষনা করেন। রায় ঘোষনার সময় নিহতের ছেলে বনপাড়া পৌর মেয়র জাকির হোসেন, ও তার স্ত্রী এবং মামলার বাদী নাজমা বেগম, নাটোর পৌর মেয়র উমা চৌধুরী জলি, সিংড়া পৌর মেয়র জান্নাতুল ফেরদৌস, গুরুদাসপুর পৌর মেয়র শাহনাজ আলী মোল্লা, বড়াইগ্রাম উপজেলা চেয়ারম্যান ডাঃ সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী সহ বড়াইগ্রাম ও জেলা আওয়ামীলীগের শীর্ষ পযার্য়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া মামলার রায় জানতে বিএনপি নেতা শহিদুল ইসলাম বাচ্চু, রহিম নেওয়াজ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ আদালতে উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে এই রায় ঘোষনার পর তাৎক্ষনিক প্রতিক্রিয়ায় পাবলিক প্রসিকিউটার সিরাজুল ইসলাম, ডাঃ আয়নালের ছেলে বনপাড়া পৌর মেয়র জাকির হোসেন ও মামলার বাদী নাজমা বেগম অসন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, রায়ের কপি দেখে তারা পরবর্তী পদক্ষেপ নিবেন। মেয়র জাকির হোসেন ও মামলার বাদী নাজমা বেগম এই রায়ে ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়াসহ হতাশা ব্যক্ত করেন।