নাটোরে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে ঈশ্বরদীর গাড়ি ব্যবসায়ী

সাজেদুর রহমান, নাটোর প্রতিনিধিঃ নাটোরে অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে পরে সর্বস্ব হারিয়েছেন বাদশা (৩৫) নামে ঈশ্বদীর এক গাড়ি ব্যবসায়ী। রোববার ২৩ আগস্ট বেলা ১১টার দিকে শহরের মাদ্রাসা মোড়ের বাস স্টপেজ এলাকায় বাদশাকে একটি যাত্রিবাহি বাস থেকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। এলাকাবাসী সুত্রে জানাযায়, পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার পাকশী এলাকার মফিজের ছেলে বাদশা, জিয়া সহ কয়েকজন যৌথ অংশিদারিত্বে পুরাতন ও নতুন গাড়ি বেচা কেনা করেন। নাটোরের জনৈক গাড়ি মালিক আমিরুলের একটি ১০ চাকার টাটা গাড়ি কেনার জন্য রোববার সকালে দাশুরিয়া থেকে নাটোরে আসার উদ্দেশ্যে একটি যাত্রিবাহি বাসে ওঠেন। এসময় গাড়ির মালিক আমিরুলও ওই বাসে ওঠেন। তবে স্বাস্থ্যবিধির কারনে দু’জন দুই সিটে বসেন।
পথে কোন এক সময় বাদশা অজ্ঞান পাটির খপ্পরে পড়েন। তারা বাদশাকে নেশা জাতীয় কিছু শুঁকিয়ে অথবা কিছু খাওয়ালে বাদশা অচেতন হয়ে পড়ে। এসুযোগে তার কাছে থাকা ৮০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয় অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা। এদিকে বাসের সুপারভাইজার বাদশাকে অচেতন দেখে তার সাথে থাকা আমিরুলকে জানায়। বাসটি নাটোর শহরের মাদ্রাসা মোড়ের বাস স্টপেজে আসার পর অচেতন বাদশাকে উদ্ধার করে নাটোর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। খবর পেয়ে বাদশার চাচাতো ভাই ও ব্যবসায়ীক পার্টনার জিয়া নাটোর সদর হাসপাতালে ছুটে যান।
এ সময় জিয়া জানান, তারা একই সাথে পুরাতন মোটর গাড়ি কেনা বেচার ব্যবসা করেন। তারা একটি দশ চাকার টাটা গাড়ি কিনতে রোববার নাটোরে আসেন। বাদশা বাসে করে এবং তিনি সিএনজি অটো থ্রি হুইলার গাড়িতে করে নাটোরের লিটল মটরসে এসে জানতে পারেন বাদশাকে অচেতন অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ওর কাছে গাড়ির বায়না বাবদ ৮০ হাজার টাকা ছিল। টাকাগুলো খোয়া গেছে। বেলা ৪ টা পর্যন্ত বাদশার জ্ঞান ফেরেনি। নাটোর থানার অফিসার ইনচার্জ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, বিষয়টি পুলিশকে জানায়নি কেউ। হাসপাতালে পুলিশ পাঠানো হয়েছে এবং জ্ঞান ফিরলে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।