নাটোরের বড়াইগ্রামে তালাকের জের,এসিডে ঝলসে গেল গৃহবধূ

সাজেদুর রহমান, নাটোর প্রতিনিধিঃ নাটোরের বড়াইগ্রামে স্বামীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে তালাক দেয়ায় তালাকের সাতদিনের মাথায় নার্গিস আক্তার নুপুর (২৭) নামে সাবেক স্ত্রীকে এসিড নিক্ষেপ করে ঝলসে দিয়েছে সাবেক স্বামী আবু তালেব। এবিষয়ে আবু তালেবের বিরুদ্ধে নুপুরের বাবা বড়াইগ্রাম থানায় একটা মামলা দায়ের করেন। অভিযুক্ত তালেবকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সোমবার (২৩ নভেম্বর) রাতে উপজেলার জোয়াড়ী ইউনিয়নের কামারদহ গ্রামে ঘটে এই মর্মান্তিক ঘটনা।

গুরুতর অবস্থায় নুপুরকে প্রথমে নাটোর সদর হাসপাতালে পরে অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকায় শেখ হাসিনা বার্ণ ইউনিটে ভর্তি করা হয়।

বড়াইগ্রাম উপজেলার কামারদহ গ্রামের আনোয়ার হোসেন তাজেমের মেয়ে এবং আহম্মেদপুর গ্রামের রাহাত আলীর ছেলে আবু তালেবের সাবেক স্ত্রী আহত নুপুর।

নুপুরের বাবা আনোয়ার হোসেন তাজেম বলেন, আবু তালেব তার মেয়ে নার্গিস আক্তার নুপুরকে বিয়ে করে কয়েক বছর যাবৎ তার বাড়িতেই থাকতো। বিয়ের পর থেকে তাদের মধ্যে প্রায়ই দ্বন্দ্ব-কলহ চলে আসছিল। এ কারণে সাত দিন আগে তার মেয়ে আবু তালেবকে তালাক দেয়। তিনি আরও জানান, সোমবার সন্ধ্যার পর নুপুর বাড়ির উঠানে হাঁটাহাটি করছিল এসময় আবু তালেব তাকে লক্ষ্য করে এসিড ছুড়ে পালিয়ে যায়। সেসময় নুপুরের চিৎকারে স্বজনরা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে ঢাকায় শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে ভর্তি করে।

তার মেয়ে নুপুরের মুখের একটি অংশসহ শরীরের বিভিন্ন অংশ এসিডে ঝলসে গেছে বলে তিনি ডাক্তারের বরাত দিয়ে জানান।

স্থাণীয়রা জানান, আবু তালেব ডাকাতিসহ একাধিক মামলার আসামি। বিয়ের পর থেকেই তাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব-কলহ লেগে থাকতো। অতিষ্ঠ হয়ে নুপুর আবু তালেবকে তালাক দিতে বাধ্য হয়েছে।

বড়াইগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে রাতেই অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত আবু তালেবকে গ্রেপ্তার করে মআজ মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) সকালে বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে তাকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।