ধামরাইয়ে পৌর নির্বাচনে প্রার্থীদের প্রতিক বরাদ্দ করে দিলেন নির্বাচন কমিশন

মোঃ আমিনুর রহমান, ধামরাই প্রতিনিধিঃ ঢাকার ধামরাইয়ে পৌরসভার নির্বাচন জমে উঠেছে প্রত্যেক প্রার্থী তার নিজ নিজ ভোটারদের কাছে গিয়ে ভোট চাইছেন। আজ শুক্রবার ১১ই ডিসেম্বর সকাল ১০ ঘটিকার সময় ধামরাই উপজেলা অডিটোরিয়ামে, নির্বাচন কমিশন কর্তৃক ধামরাই পৌরসভা সাধারণ নির্বাচন-২০২০ উপলক্ষে, মেয়র ও কাউন্সিলরগন কে নির্বাচনী প্রতীক প্রদান করা হয়।

এ সময় সকাল দশটায় থেকে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া শুরু করে নির্বাচন কমিশন। প্রথমে মেয়ের প্রার্থীদের প্রতীক প্রদান করা হয় আওয়ামী লীগ সমর্থিত নৌকা প্রতীক পেয়েছেন ধামরাই পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান মেয়র আলহাজ্ব গোলাম কবির মোল্লা।

অপরদিকে বিএনপির সমর্থিত ধানের শীষ প্রতীক পেয়েছেন ধামরাই পৌর বিএনপির সভাপতি দেওয়ান নাজিমুদ্দিন মুঞ্জ। পরে সংরক্ষিত আসনের ১,২,৩ নং ওয়ার্ড ৪,৫,৬ নং ওয়ার্ড ৭,৮,৯ নং ওয়ার্ডের মহিলা কাউন্সিলরদের প্রতীক দেওয়া হয়। পরে সাধারণ আসনে ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের এক এক করে ১ নং ওয়ার্ড থেকে ৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের প্রতীক প্রদান করা হয়।

উক্ত নির্বাচনী প্রতীক প্রদানকালে, মেয়র প্রার্থীগন এবং সকল কাউন্সিলর প্রার্থীগন উপস্থিত ছিলেন। এ সময় ৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রতীক প্রদান শেষে ৯ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আবু সাইদকে নিয়ে উল্লাসে মেতে উঠে তার সমর্থনকারীরা এবং মিছিলের চেস্টা করে, তার পরপরই নির্বাচন কমিশনার মোঃ মুনির হোসেন খান সকলের সামনে নির্বাচনী আচারন বিধি মালা লঙ্ঘন করার কারনে মৌখিক ভাবে তাকে বিশেষ সর্তকতা মুলক নির্দেশনা দেন।

উক্ত ঘটনা স্থল থেকে আরো যানা যায় যে, মোঃ আবু সাঈদ সমর্থনকারীরা উপজেলা চত্বরে মিছিল এবং মোটরসাইকেল মহড়া বের করার সময় ধামরাই থানা পুলিশ মহড়া কালীন সময়ে চারটি মোটরসাইকেল জব্দ করে এবং পরবর্তীতে শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণ হুশিয়ারি করে বিশেষ সতর্কতামূলক নির্দেশনা প্রদান করে মোটরসাইকেলগুলো ছেড়ে দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে ধামরাই থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) দীপক চন্দ্র সাহা বলেন, নির্বাচনী আচরণ ভঙ্গের কারণে ৪টি মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়। পরে প্রাথমিক ভাবে শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণ হুশিয়ারি করে বিশেষ সতর্কতামূলক নির্দেশনা প্রদান করে মোটরসাইকেলগুলো ছেড়ে দেওয়া হয়।