দৈনিক সময়ের আলো’র প্রধান প্রতিবেদক সাংবাদিক হুমায়ুন কবির খোকন স্মরণে মিঠাপুকুর উপজেলা প্রতিনিধির “খোলা চিঠি”

আমিরুল কবির সুজন, মিঠাপুকুর (রংপুর) প্রতিনিধি: প্রিয় সহযোদ্ধা ওপারে ভাল থাকবেন। মহান আল্লাহ আপনাকে জান্নাতুল ফেরদৌস নসিব করুন। আপনার পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা। আমি নিজেও ভরাক্রান্ত মনে নিজেকে বোঝাতে পারছিনা আপনি আর নেই।

এইতো গত ডিসেম্বর ২০১৯ সময়ের আলো পত্রিকার ঢাকা অফিসে আমাকে মিঠাপুকুর উপজেলা প্রতিনিধির নিয়োগপত্র দেয়ার সময় আপনি বলেছিলেন একটা ছবি নেয়া হোক কারণ আমরা সকলে পৃথিবীর থেকে বিদায় নেব। হয়তো কোন একদিন এই সৃতিগোলো এই মুহুর্তটাকে স্মরণ করিয়ে দিবে, আজকে তোমার জীবনের নতুন এক পথচলা শুরু হলো।

মাত্র ১০ মিনিটের একটা মুহূর্ত ওই সময়ে পত্রিকার শ্রদ্ধেয় ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক কমলেশ রায় উনার অফিস রুমে, শহীদ সাংবাদিক হুমায়ুন কবির খোকন, মফস্বল বার্তা প্রধান শামীম আহমেদ ও আমি একটা ছবিতে আবদ্ধ হলাম। খুব সযতনে সংরক্ষণ করি সেই ছবিটি।

আজ ওই ছবিটা আমার কাছে একটি মূল্যবান সম্পদ। ফটোসেশান শেষে শহীদ সাংবাদিক গুনীজন হুমায়ূন কবির খোকন ভাই আমাকে বললেন সময়ের আলো পত্রিকা নিয়ে আমারা নিরলস প্রচেষ্টা করে যাচ্ছি আমাদের শক্তি তোমার মতো তরুণ সংবাদ কর্মী মফস্বল এলাকায় কাজ করা অনেক কষ্টের তবুও দেশের জন্য সততার সাথে কাজ করো ভালো কিছু করতে পারবে।

দিকনির্দেশনা দিলেন শ্রদ্ধেয় ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক কমলেশ রায় সাহস দিলেন তিনি বললেন কাজ করো যে কোন সময়ে আমাদের পক্ষ থেকে সাপোর্ট দেওয়া হবে। পত্রিকার মফস্বল বার্তা প্রধান শামীম ভাই ওনার অফিস কক্ষে বসে চা চক্রের ফাঁকে অনেক দিকনির্দেশনা দিলেন।

সময়ের আলো পত্রিকা অফিসে অল্প সময় অবস্থান করে মনে হলো এটি একটি পরিবার কারো মনে কোন দাম্ভিকতা নেই। যেন সকলের তরে সকলে মোরা প্রত্যেকে মোরা সকলের তরে। কিন্তু আজ সব সৃতি শত আঘাত আর শূন্যতায় নিজেকে সান্তনা দেবার মতো ভাষা হারিয়ে ফেলেছি। সত্যি বিচিত্র এই পৃথিবীর,বিচিত্র সব মানুষ। বিচিত্র পৃথীবিতে জীবনযোদ্ধা মানুষের জীবন এবং জীবনের গল্পগুলো সত্যি কষ্টদায়ক।

সহযোদ্ধা শহীদ সাংবাদিক হুমায়ুন কবির খোকন আমাদের মাঝে আছেন থাকবেন একজন কলমসৈনিক হয়ে এই সুন্দর পৃথিবীতে।

বড়ই মর্মান্তিক আর হৃদয়বিদারক ভাবে উনাকে চলে যেতে হল এই সুন্দর পৃথিবীর সকল মোহ মায়ার বন্ধন ছিন্ন করে।

করোনা ভাইরাস জনিত মহামারীর কবলে পড়ে স্তব্ধ হয়ে যায় উনার কর্মমুখর জীবন। সেই সাথে থেমে যায় উনার জীবিকার পথ।

করোনা যুদ্ধে দেশের প্রথম প্রথম সাংবাদিক হুমায়ুন কবির খোকনের অকাল মৃত্যু জানিনা দিয়ে গেলেন সাংবাদিকদের কোন ভয় নেই। একজন প্রকৃত সাংবাদিক নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে দেশের কল্যাণে। ভালো থাকবেন ওপারে।