দেশে র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট শুরু

নীতিমালা প্রণয়নের তিন মাসেরও বেশি সময় পর করোনাভাইরাস শনাক্তে র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন পরীক্ষা শুরু হতে যাচ্ছে।

কোভিড-১৯ শনাক্তে আজ শনিবার (৫ ডিসেম্বর) থেকে প্রাথমিকভাবে দেশের ১০টি জেলায় বিনামূল্যে অ্যান্টিজেন পরীক্ষা করা হবে। পর্যায়ক্রমে দেশের অন্যান্য স্থানে এ কার্যক্রম আরো সম্প্রসারিত করা হবে। যে জেলাগুলোতে আপাতত অ্যান্টিজেন পরীক্ষা শুরু হতে যাচ্ছে সেগুলো হলো: পঞ্চগড়, গাইবান্ধা, মেহেরপুর, মুন্সিগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, জয়পুরহাট, পটুয়াখালী, যশোর, মাদারীপুর ও সিলেট। এর মধ্যে সিলেটে শহীদ শামসুদ্দিন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এবং বাকি জেলার সদর হাসপাতালে এই টেস্ট করা যাবে।

গত বুধবার (২ ডিসেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এ সংক্রান্ত নির্দেশনা ওই ১০ জেলায় পাঠানো হয়েছে। অধিদপ্তরে সংশ্লিষ্টদের প্রশিক্ষণ দেয়ার পর অ্যান্টিজেন কিটসহ তাদের নিজ নিজ জেলায় পাঠানো হয়েছে।

শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঘটেছে কি না, তা দ্রুততম সময়ে জানার পদ্ধতি হল অ্যান্টিজেন পরীক্ষা। এজন্য নাক বা মুখের ভেতর থেকে নমুনা নিতে হয়। এ পদ্ধতিতে মাত্র আধঘণ্টার মধ্যেই জানা যাবে ফলাফল। সংক্রমণ শনাক্তে আরটি পিসিআর পদ্ধতি সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য হলেও এতে নমুনা সংগ্রহের পর ফল পেতে বেশ সময় লাগে, ব্যয়বহুলও। তাছাড়া দেশের সব জায়গায় এ পরীক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় ল্যাবও নেই। সে তুলনায় অ্যান্টিজেন পরীক্ষায় খরচ কম, ফলও পাওয়া যায় দ্রুত।

মার্চে দেশে সংক্রমণ শুরুর পর পরীক্ষার হার বাড়াতে অ্যান্টিজেন টেস্ট শুরুর ওপর জোর দিচ্ছিলেন বিশেষজ্ঞরা। এই প্রেক্ষাপটে গত ১৭ সেপ্টেম্বর অ্যান্টিজেন পরীক্ষার অনুমোদন দেয় সরকার। তারপরও আড়াই মাস লেগে গেল পরীক্ষা চালুর ব্যবস্থা করতেই। অ্যান্টিজেন টেস্ট শুরু হতে যাওয়া প্রতিটি জেলায় প্রাথমিকভাবে ৫০০টি করে কিট সরবরাহ করা হয়েছে। দশ জেলার অভিজ্ঞতার আলোকে পর্যায়ক্রমে অন্য জেলাতেও অ্যান্টিজেন পরীক্ষা চালু করবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।