দিনাজপুরে বিদ্যুৎ বিল ঘরে ঘরে পৌঁছানোয় করোনা ঝুকিতে গ্রামবাসী

মোঃ নাজমুল ইসলাম নয়ন, দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি: যেখানে বৈশ্বিক সমস্যা করোনাভাইরাস। মহামারি ধারণ করেছে। সর্বত্র আতংক আর উৎকন্ঠা ছরিয়ে পরেছে ! লাখ লাখ মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে। মারা যাচ্ছে অগণিত মানুষ ! সবকিছু বন্ধ ! লকডাউন চলছে । “শেখ হাসিনার উদ্যোগ-ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ ” এই শ্লোগানে পুঁজি করে বিদ্যুৎ বিভাগ বাসায় বাসায় বিদ্যুৎ বিল পৌছে দিয়ে বাইরাস ছরাতে উল্লাসে মেতেছে ।

বিদ্যুৎ বিল গ্রহন করা এক গ্রাহক বলেন, বিদুৎ বিভাগ কি অন্য গ্রহের প্রতিষ্ঠান ? যেখানে বৈশ্বিক সমস্যা করোনাভাইরাস।মহামারি ধারণ করেছে। সর্বত্র আতংক ও হাজার হাজার মানুষ আক্রান্ত। মারা যাচ্ছে অগণিত মানুষ ! সবকিছু বন্ধ লকডাউন চলছে , আমাদের দেশে ঝুঁকি ঘোষণা করেছে সরকার। সেখানে বিদ্যুৎ বিভাগ,বিল পরিশোধের জন্য বাসায় বাসায় বিদুৎ বিল পৌঁছে দিচ্ছে।

একই ব্যক্তি শুধুতো আর এক বাসায় নয়, অসংখ্য বাসায় পৌঁছে দিয়েছে এই বিল। নিজে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কি না, বা যে সব বাসায় বিল পৌঁছে দিয়েছে, তারা কেউ আক্রান্ত কি না? তাহলে কি বিদুৎ বিভাগ বাংলাদেশ সরকারের বাইরে, না পৃথিবির বাইরের প্রতিষ্ঠান ।

যারা বাসায় নিরাপদে আছেন ,সামাজিক দুরত্ব মানছেন, এদের কতো জনকে আর করোনাভাইরাসে আক্রান্ত করবে ? আর কতো ঘটাবে করোনার সংক্রমণ ? অন্য দিকে বিদ্যুৎ বিল এ ২১/০৩/২০ তারিখে বিল প্রস্তুত করার কথা উল্লেখ থাকলেও তা আজ ১৮/০৪/২০২০ শনিবার সকালে অনেকের বাসায় বিল পৌঁছে দিয়েছে । আজ শনিবার ব্যাংক বন্ধ।

বিল দেয়ার শেষ তারিখ ২০/০৪/২০২০ সোমবারের মধ্যে উল্লেখ করা হয়েছে অনেকেই বলছে আমাদের জমানো টাকা নেই যা বিল হাতে পাবার একদিনের মধ্যে পরিশোধ করতে সক্ষম হবো ? অনেক গ্রাহক জানান ,এই মহামারি আর সংকট মুহুর্তও অনেক সময় বিদ্যুৎ থাকেনা। বৃষ্টি আর ঝড় আসলেতো কথাই নেই! তারপরও বিদুৎ বিভাগের এ কেমন ধৃষ্টতা ? এ কেমন অমানবিক কার্যক্রম , যারা ঘরে আছেন, সামাজিক দুরত্ব মানছেন,তাদের করোনাভাইরাসে আক্রান্ত করার এ কেমন হীন কৌশল ? এই প্রতিষ্ঠান এর বিরুদ্ধে সরকার বা প্রশাসনের ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান এলাকাবাসীর ।