তারাবির নামাজে মসজিদে ১২জনের বেশি অংশ নিতে পারবেন না-অধ্যক্ষ কাজী মহিউদ্দিন মোল্লা

বাবুল সিকদার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রতিনিধি: রোজার সময় তারাবির নামাজে মসজিদে ১২জনের বেশি অংশ নিতে পারবেন না,বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে রোজার সময় মসজিদে তারাবি নামাজ’র করণীয় বিষয়ে,আলোচনা কালে,চর চারতলা ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা’র অধ্যক্ষ,সভাপতি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা কাজী সমিতি ও সভাপতি জেলা আহলে সুনাত ওয়াল জামায়াত,আলহাজ্ব কাজী মো.মহিউদ্দিন মোল্লা মসজিদে তারাবির নামাজে দু’জন কোরানে হাফেজসহ ১২জনের বেশি অংশ নিতে পারবেন না।

শুক্রবার (২৪এপ্রিল) জুম্মার নামাজের পর তিনি এসব কথা জানান তিনি। মসজিদে তারাবির নামাজে ১২জনের বেশি অংশ নিতে পারবেন না, এখন পরিস্থিতি বিবেচনা করে সরকার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মসজিদ যেভাবে চালু আছে, সেভাবেই চালু থাকবে। যে নিয়মে এশার নামাজে পাঁচজন লোক হওয়ার কথা,সেখানে এখন রমজান মাসে তারাবির জন্য সেই সংখ্যা ১২জনে উন্নীত করা হয়েছে। সেটা হলো ১০জন মুসল্লী আর দুই জন হাফেজ। যে হাফেজরা খতম তারাবি পড়াবেন। বাইরের কোন লোক ঢুকতে পারবে না।

এটা আমাদের সরকারের সিদ্ধান্ত। দেশে এখন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিদিনই বাড়ছে।এখন এই খারাপ পরিস্থিতিতে মসজিদে জনসমাগম ঝুঁকিপূর্ণ সেই বিষয়কেই গুরুত্ব দিয়ে শরীয়ত অনুযায়ীই সরকার অবস্থান নিয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেছেন। করোনাভাইরাসের মহামারিতে অনেক আগেই মক্কা মদিনাসহ মুসলিম দেশগুলোতে মসজিদে জামাতে নামাজ বন্ধ করে দেয়া হয়,তিনি আরও বলেন মাহে রমযান মাস একটি রহমত ও বরকতের মাস সরকারি নিয়ম মেনে যারযার ঘরে নামাজ আদায় করলে এতে তারাবির নামাজের কোন ক্ষতি হবে না।