তরুণ সমাজকে সাথে নিয়ে দুর্বার গতিতে উন্নয়ন করছেন নিক্সন চৌধুরী : রাসেল মিয়া হৃদয়

এলাকার ছেলের চরণ এলাকার মাটিতে পড়েছে, তুজারপুর ইউনিয়নবাসী ধন্য হয়েছে। ২১ জানুয়ারী বিকেল ৩টা বঙ্গ টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব রাসেল মিয়া বের হলেন নিজ ইউনিয়ন ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা উপজেলার ৫ নং তুজারপুর ইউনিয়নের সকল মানুষের খোজ খবর নিতে। হঠাৎই মোটর সাইকেলের হর্ন, পিছন ফিরতেই দেখলেন ১ টা ২ টা নং শত শত মোটর সাইকেল বজ্রকন্ঠে রাসেল ভাই রাসেল ভাই। প্রশ্ন কেনো এমন? উত্তর এবারের নির্বাচনে আপনাকে চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত করে তুজারপুর ইউনিয়নকে স্বপ্নের একটা ডিজিটাল ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তুলতে চায়। রাসেল মিয়ার মুচকি হাসিতে উত্তর ইনশাআল্লাহ।

কথায় আছে একজন গুরুর আদর্শেই আদর্শিত হন তার শির্ষ্য। বলছি গুরু ফরিদপুর ৪ আসনের জনপ্রিয় সংসদ সদস্য জনাব মুজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সনের কথা। যিনি ২০১৪ সালে দায়িত্ব নেবার পর থেকে তরুণ সমাজকে সাথে নিয়ে উন্নয়ন করেছেন দুর্বার গতিতে। প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ফরিদপুর ৪ আসনকে ডিজিটাল হিসেবে গড়ে তুলতে। এতো গেলো গুরুর কথা, বলেছিলাম গুরুর আদর্শেই আদর্শিত হন তার শির্ষ্য এবারে শুনুন শিষ্য জনাব রাসেল মিয়ার কথা। বহু বছর আগে হ্যামিলনের বাঁশির এক অচেনা সুরের আকর্ষণে শহরের হাজার হাজার ইঁদুর দল বেঁধে ছুটছিলো লোকটির পেছনে পেছনে কারন সুরের আকর্ষণ। আর এবার পেছন পেছন ছুটলেন হাজার হাজার মানুষ যেখানে হ্যামিলনের বাশিওয়ালার জায়গায় বঙ্গ টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক, তুজারপুর ইউনিয়নের জান্দিদিঘীরপাড়ের মিয়া বাড়ির কৃতি সন্তান জনাব রাসেল মিয়া হৃদয়।

২১ জানুয়ারী বিকেল ৩টায় জনাব রাসেল মিয়া বের হন নিজ ইউনিয়ন ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা উপজেলার ৫ নং তুজারপুর ইউনিয়নের সকল মানুষের খোজ খবর নিতে। কিন্তু ভালো খবর যে বাতাসের আগে ছুটে চলে, তাইতো ঘরে বসে থাকা হাজারো তরুণ সমাজ মোটর সাইকেল যোগে বেরিয়ে পড়লেন রাসেল মিয়া হৃদয়ের ১ম নির্বাচনী প্রচারণায় সবাই এক হয়ে গাইলেন রাসেল ভাই রাসেল ভাই। এত মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত রাসেল মিয়া হৃদয় ঘুরলেন পুরো ইউনিয়ন, কুশল বিনিময় করলেন সমাজের প্রতিটি স্তরের মানুষের সাথে।

সাধারণত মানুষের আবদার থাকে নিবার্চনে বিজয়ী প্রার্থীরা যেন উন্নয়ন করে কিন্তু এই ইউনিয়নের মানুষের আবদার যেনো একটু অন্য রকম তারা চায় রাসেল মিয়া হৃদয় ভাই যেনো এবারের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করে কারণ তারা তো দেখেছে একটা মানুষ জীবনের কথা চিন্তা না করে বঙ্গ ফাইন্ডেশনের মাধ্যমে কিভাবে করেনাকালে সারা বাংলাদেশব্যাপী সাহায্যের হাত বাড়িয়েছে সেই বিশ্বাস থেকেই তো রাসেল মিয়া হৃদয়কে চেয়ারম্যান হিসেবে পাশে পেলে শুধু স্বপ্ন নয় অবাস্তবও রূপান্তর হবে বাস্তবে, হাসি ফুটবে গরীবদুঃখী অসহায় মেহনতী মানুষের মুখে, গড়ে উঠবে স্বপ্নের একটা ডিজিটাল তুজারপুর ইউনিয়ন।