ডুমুরিয়া চুকনগর বাজারে মানছে না সামাজিক দূরত্ব বাড়ছে করোনার ঝুকি

জাহাঙ্গীর আলম (মুকুল),ডুমুরিয়া খুলনা প্রতিনিধিঃ বৈশ্বীক কোভিড (১৯) মহামারি করোনা ভাইরাস উপেক্ষা করে খুলনা জেলা ডুমুরিয়া উপজেলার চুকনগর বাজারে ঈদ পরবর্তী বাজার জমজমাট হয়ে উঠেছে। সেই কাক ডাকা ভোর থেকে শুরু হয়ে রাত ৮/৯ টা পর্যন্ত চলছে চুকনগর বাজারের বিপনী বিতানগুলোতে ক্রেতাদের উপচেপড়া ভীড় লেগেই চলেছে।

এক্ষেত্রে মানা হচ্ছেনা স্যাস্হ বিধি কোন প্রকার সামাজিক ও শারিরীক দুরুত্ব। অন্যদিকে চুকনগর বাজারসমুহে যাত্রীবাহী ভ্যান, ইজিবাইক, পণ্যবাহী ও ব্যক্তিগত গাড়ি চলাচল বৃদ্ধির কারনে সৃষ্টি হচ্ছে দীর্ঘ যানজটের। তবে সামাজিক ও শারিরীক দুরুত্ব বজায় রাখতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের বেশ তৎপরতা রয়েছে। তার পরও মানুষের মধ্যে বিন্দু মাত্র সচেতনতা লক্ষ্য করা যাচ্ছেন।

ফলে মহামারী করোনা ভাইরাস মোকাবিলা বেশ কঠিন হয়ে পড়েছে। ঈদের দ্বিতিয় দিন পার হলেও চুকনগরের আশেপাশের বাজার যেমন আঠারো মাইল,কাঁঠালতলা, খর্নিয়াসহ বিভিন্ন বাজারের বিপনী বিতানগুলিতে বেচাকেনা বাড়ছে ক্রেতার উপচে পড়া ভিড় নিম্ন ও নিম্ন মধ্যবিত্তের ভিড়ে দোকানগুলো এখন সরগরম। মহামারি করোনা ভাইরাসকে তুচ্ছ মনে করে ক্রেতাদের পদচারনায় কাকাডাকা ভোর থেকে শুরু করে রাত৮/৯ টা পর্যন্ত চলছে ধুমছে বেচাকেনা। তার ওপর কোন প্রকার সামাজিক বা শারিরীক দুরুত্ব বজায় রাখার তোয়াক্কা করছেনা ত্রেতারা। হুড়োহুড়ি করে তারা পছন্দের পণ্যটি কেনার জন্য হুমড়ি খেয়ে পড়ছে। কিছু বিপনী বিতানে হ্যান্ডস্যানিটাইজার থাকলেও কাউকে ব্যবহার করতে দেখা যায়নি। খুলনা জেলা প্রশাসাকের নির্দেশ অমান্য করে খুলছে দোকান পাট বাড়ছে করোনোর ঝুঁকি। মহামরী এই করোনা ভাইরাস সংক্রমণে খুলনা জেলা প্রশাসকের দেওয়া নির্দেশ অমান্য করে চুকনগর বাজারে সকল দোকানপাটসহ জমে উঠেছে ঈদ পরবর্তী আড্ডা।

গত ১৪মে ২০২০ তারিখে খুলনা জেলা প্রশাসকের দেওয়া নির্দেশ অমান্য করে কোন রকম স্বাস্থ্য বিধি না মেনে চলেছে চুকনগর বাজারে সকল দোকানে বেচা কেনা। সম্পতি ডুমুরিয়ায় দিন দিন এই মহামারী করোনো ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন এলাকায় অধর গতিতে বেড়ে চলেছে আক্রান্তের সংখ্যা। চুকনগর বাজার তিনটা জেলার মোহনা নিয়ে অবস্থিত যেখানে প্রতিদিন আসছে বিভিন্ন জেলার লোকজন বাড়ছে ঝুঁকি। করোনো ভাইরাসের শুরু থেকে এই পর্যন্ত মাঠে নেমে কাজ করে যাচ্ছেন উপজেলা প্রশাসন কিন্তু হচ্ছে না মানুষ সচেতন।

ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ শাহানাজ বেগম জানান, ডুমুরিয়া উপজেলার সকল মানুষ কে সচেতন ও ঘরে থাকার অনুরোধ করছি, আমরা দিনরাত মাঠে নেমে ডুমুরিয়া উপজেলার া সর্বস্তরের সকল জনগনকে ভালো রাখার চেষ্টা করছি। তারপরও মানুষ সচেতন হচ্ছে না,সকলকে নিজেদের জীবনের জন্য আর ও সচেতন হওয়ার জন্য অনুরোধ করছি।

ডুমুরিয়া উপজেলা সরকারী কমিশনার ভূমি সঞ্জীব দাশ বলেন আমরা উপজেলা প্রশাসন আমাদের নিজের পরিবারের কথা ভুলে এই করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে দিনরাত কাজ করে যাচ্ছি তারপরে ও মানুষ সচেতন ও ঘরে থাকছে না, মেনে চলছে না স্বাস্থ্যবিধি।ডুমুরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম বিল্পব বলেন,আমরা দেশের এই সংকটময় মুহূর্তে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী র সকল নির্দেশ মেনে মানুষের পাশে থেকে কাজ করে যাচ্ছি। কিন্তু জনগন হচ্ছে না সচেতন মানছে না সাস্থ্যবিধি, ডুমুরিয়া সকল মানুষ কে আর সচেতন ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঘরে থাকার অনুরোধ করছি