ডুমুরিয়ায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্তে মৃত ব্যক্তিদের দাফন কাফনের ব্যবস্থা করলেন ইমাম ও উলামা পরিষদ

মোঃ জাহাঙ্গীর আলম(মুকুল), ডুমুরিয়া খুলনা প্রতিনিধি:  বৈশ্বীক কেভিড (১৯)করোনা ভাইরাস আক্রান্তে মৃত ব্যক্তিদের কাফন-দাফনে গঠিত স্বেচ্ছাসেবি সংগঠন দক্ষিন ডুমুরিয়া ইমাম ও উলামা পরিষদের উদ্যোগে এবং তাকওয়া ফাউন্ডেশনের ব্যবস্হাপনায় শনিবার করোনা আক্রান্ত এক মৃত ব্যক্তির দাফন-কাফন সম্পন্ন করা হয়েছে। খুলনার কয়রা উপজেলার চাঁদ আলী এলাকার অধ্যাপক বায়জিদ আমান (২৯)নামে এক ব্যক্তি করোনাক্রান্ত হয়ে ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসারত শুক্রবার মৃত্যু বরণ করেন।

করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়ায় তার পরিবারের সদস্য ও আত্নীয় স্বজনরা ভীত সন্ত্রাস্ত হয়ে লাশ কাফন-দাফনে পড়ে যান দ্বিধা- দ্বন্দ্বে। এক পর্যায়ে পরিবারের পক্ষ থেকে লাশ কাফন-দাফনে স্মরনাপন্ন হন করোনা আক্রান্তে মৃত্যু বরণকারী ব্যক্তিদের কাফন-দাফনে গঠিত স্বেচ্ছাসেবি সংগঠন দক্ষিণ ডুমুরিয়া ইমাম ও উলামা পরিষদর নেতৃবৃন্দের সাথে।

শুক্রবার সকালে সংগঠনের কর্মীবৃন্দ হাজির হন কয়রায় মৃত অধ্যাপকের বাড়িতে। এরপর তারা ধর্মীয় বিধি বিধান অনুযায়ী লাশ কাফন-দাফন করেন। এ প্রসঙ্গে স্বেচ্ছাসেবক টিমের সমন্বয়কারী হাফেজ মো. ওয়াহেদুজ্জামান জানান, গত এপ্রিল মাসে দেশে করোনা ভাইরাস সংক্রমনে মৃত ব্যক্তিদের কাফন-দাফনে তাদের স্বজনরা ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে যখন ধর্মীয় রীতিনীতি উপেক্ষা করে যেন তেন ভাবে লাশ দাফন-কাফন করছে মর্মে খবর জানতে পারলাম,

তখনই সিদ্ধান্ত নিয়ে মৃত ব্যক্তিদের দাফন-কাফনে গঠন করলাম দক্ষিন ডুমুরিয়া ইমাম ও উলামা পরিষদের উদ্যেগে ১৫ সদস্য বিশিষ্ঠ স্বেচ্ছাসেবি সংগঠন। তিনি আরো বলেন, সংগঠনের পক্ষ থেকে প্রথম করোনা আক্রান্ত মৃত ব্যক্তিকে কাফন-দাফন করে সাধারণ মানুষকে দেয়া আমাদের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে পেরে আমরা মহান আল্লাহ পাকের দরবারে শোকরিয়া আদায় করছি। তাদের কাজে উৎসাহ ও সহযোগীতার জন্যে খুলনা জেলা প্রশাসন, ডুমুরিয়া ও কয়রা উপজেলা প্রশাসন এবং পুলিশ প্রশাসনের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।