ডুমুরিয়ায় চাকুন্দিয়া দোকানঘর সড়কের ইটের সোলিং এর বেহাল দশা

জাহাঙ্গীর আলম (মুকুল), ডুমুরিয়া (খুলনা) প্রতিনিধিঃ খুলনা সাতক্ষীরা মহাসড়কের চাকুন্দিয়া দোকানঘর সড়কের ইটের সোলিং এর আনুমানিক আড়াই কিলোমিটার দীর্ঘ রাস্তাটি তৈরি করা হয়েছিল ২০০০ সালে। এখন ইটের সলিং উঠে খানাখন্দে সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এতে দুর্ভোগ পোহাচ্ছে ৪/৫ টি গ্রামের ৩/৪ হাজার মানুষ। ডুমুরিয়া উপজেলার চাকুন্দািয়া দোকানঘর সড়কের বেহাল দশা এটি।

সরেজমিনে আজ শুক্রবার দেখা যায়, খুলনা সাতক্ষিরা মহাসড়কের দোকানঘর থেকে চাকুন্দিয়া গ্রামের ডাঃ কামাল হোসেনের বাড়ি থেকে দক্ষিণ চাকুন্দিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত আড়াই কিলোমিটার দীর্ঘ এ রাস্তায় ইটের সোলিং উঠে খানাখন্দ ও বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। দীর্ঘদিন মেরামত না করায় এখন আর রাস্তার কোথাও ইট নেই। অনেক স্থান থেকে ইট চুরি হয়ে গেছে। আবার কোথাও হয়েছে বড় বড় গর্ত। এর মধ্যে গোবরডাঙ্গা গ্রামের ওপর দিয়ে যাওয়া রাস্তাটি ভেঙে ইট সরে গেছে।

গ্রামবাসী সূত্রে জানা গেছে, রাস্তাটি ২০০০ সালে ইটের সোলিং করা হয়। এরপর ২০ বছর পার হয়ে গেলেও রাস্তার উন্নয়নে আর কোনো কাজ হয়নি। রাস্তাটি দিয়ে উপজেলার চুকনগর আঠারো মাইল কাঁঠালতলা খর্নিয়া ডুমুরিয়া খুলনা ও পার্শবর্তি যশোহর জেলার কেশবপুর মনিরামপুর নওয়াপাড়ায় প্রতিদিন প্রায় ১/২ হাজার মানুষ চলাচল করে।

চাকুন্দিয়া গ্রামের ফজলুল হক নিজামী চ্যানেল এস প্রতিনিধি কে বলেন, ‘২০ বছরেও সরকারি কোনো লোকজন ভাঙা রাস্তাটি দেখতেও আসেনি। পুরো রাস্তায় কোথাও ইটও খুঁজে পাওয়া যাবে না। রাস্তা ভেঙে খানাখন্দে ভরে গেছে। কোনো যানবাহন চলাচল করতে পারে না। হাঁটা ছাড়া রাস্তাটি দিয়ে চলাচলের আর কোনো উপায় নেই। এতে আমাদের সীমাহীন দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে।

চুকনগর এলাকার জনসাধারণ বলেন, ‘রাস্তা ভেঙে এমন অবস্থা হয়েছে, মানুষই চলতে পারে না, গাড়ি চলবে কেমনে? রাস্তার কোথাও ইট নাই। আবার কোথাও বড় বড় গর্ত।’
আটলিয়া ইউনিয়নের নাম প্রকাশে অনইচ্ছুক কয়েক জন ব্যাক্তি বলেন রাস্তাটি নিয়ে বড় বেকায়দায় রয়েছি। রাস্তাটি দিয়ে বাইসাইকেল চালিয়েও যাওয়া যায় না। রাস্তাটি মেরামতের জন্য স্থানীয় নেতার পিছনে ঘুরেও বরাদ্দ পাওয়া যায়নি। ফলে দুর্ভোগে আছে ৩/৪ টি গ্রামের মানুষ।’

ডুমুরিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান গাজী এজাজ আহম্মেদ জানান বর্তমান বর্ষাকাল। বৃষ্টির মৌসুম শেষ হলেই। সরেজমিনে দেখেই রাস্তাটি মেরামত করার জন্য যাবতীয় ব্যাবস্হা গ্রহন করা হবে।