ডুমুরিয়ায় কৃষক অন্জন বিশ্বাস এই প্রথম পৃথিবীর বিখ্যাত জাপানি আম সূর্য ডিম চাষ করেন

মোঃ জাহাঙ্গীর আলম (মুকুল), ডুমুরিয়া খুলনা প্রতিনিধি:   ডুমুরিয়া (খুলনা) আবার ডিম, তা আবার আম গাছে। সকলে সূর্য মামার কথা জানে। কিন্তু মামা যে ডিমও পাড়তে পারে তা জানত না। পৃথিবীর সবচেয়ে দামী আমটির নাম সূর্য ডিম। দেখতে যেমন টকটকে লাল, খেতেও সুস্বাদু। মূলত প্রেমিক-প্রেমিকা বা প্রিয়জনকে উপহার দেওয়া হয়, সূর্য ডিম আম। একটি আম ৪০০-৭৫০ গ্রাম ওজন হয়। এটি মূলত জাপানি আম এবং জাপানে গ্রীন হাউসের ভিতর বিশেষ পরিচর্যায় আমটি হয়।

এ আমটি হওয়ার পরে গ্রীন হাউসের উপরের দিক দিয়ে নেটের ভিতরে আমটি বেঁধে দিতে হয় এবং আমটি পেকে নেটের ভিতরে পড়ে। একটি আমের দাম ৬০-৭০ মার্কিন ডলার, আমটি কখনও মাটিতে পড়তে দেওয়া হয়না। কথিত মাটিতে পড়লে আমের সম্মান এবং গুণ হারায় এজন্য বিশেষ পরিচর্যায় আমটি চাষ করা হয়। এটি পৃথিবীর যেকোন আমের তুলনায় ১৫ গুন সুস্বাদু। তবে, এটি বাংলাদেশের অন্যন্য আমের সাধারণ পরিচর্যায় প্রথম বারের মত চাষ করেছেন ডুমুরিয়ার রংপুর গ্রামের অন্জন বিশ্বাস।

তিনি মূলত উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা, আমের জাতটি খুলনার বয়রার মায়া কানন নার্সারীতে ছবি দেখে তার পছন্দ হয় এবং একটি চারা ৬০০ টাকা দিয়ে কিনে নিয়ে তিনি তার বাড়িতে লাগান। বর্তমান গাছটিতে ১১ টি আম হয়েছে। এর মধ্যে একটি আম পেকে যাওয়ায় তিনি আমটি খেয়ে দেখেছেন, খুবই মিষ্টি ও সুস্বাদু আম। তিনি বলেন, আমটি যে এত সুন্দর হবে তা তিনি আগে জানতেন না, এখন আম দেখতে প্রতিদিন বিভিন্ন জায়গা থেকে লোক আসে, এটি দেখে আমি অত্যন্ত খুশি।

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মোঃ মোছাদ্দেক হোসেন বলেন, এটি মূলত জাপানি আম, শংকা ছিল আমাদের নাতিশীতোষ্ণ আবহাওয়ায় এটি কেমন পারফরম্যান্স করবে। সেক্ষেত্রে কালার এবং স্বাদ প্রায় একই রকম। এটি রোপন পদ্ধতি ও অন্যান্য পরিচর্যা বাংলাদেশের অন্যান্য আমের মতই। এটি ভাদ্র মাসে লাগান হয় এবং সার, সেচসহ অন্যান্য পরিচর্যা বাংলাদেশী আমের মত। এটি সম্প্রসারণে আমরা বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহন করেছি।