ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপপ্রয়োগ করলে ব্যবস্থা: ওবায়দুল কাদের

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপপ্রয়োগ করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। সংসদ ভবন এলাকায় সরকারি বাসভবনে আজ রোববার সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান ওবায়দুল কাদের।

এ সময় ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘রিলিফ কাজে অস্বচ্ছ কিছু হলে প্রকৃত সত্য যে কেউ তুলে ধরতে পারে। কিন্তু সেটিকে টুইস্ট করে রাজনৈতিক প্রপাগান্ডা হিসেবে প্রচার করা নিশ্চই অপরাধের শামিল।’

সেতুমন্ত্রী আরো বলেন, ‘যেকোনো পদক্ষেপের সঙ্গে যে কারো একমত বা দ্বিমত পোষণের সুযোগ রয়েছে। বঙ্গবন্ধুকন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পরিচালিত সরকার নাগরিকদের গণতান্ত্রিক অধিকারের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তবে সত্যতা যাচাই না করে জনমনে বিভ্রান্তি ছড়ানোর অপকৌশল কিছুতেই সমর্থনযোগ্য নয়।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরো বলেন, ‘মহামারি, তথা দুর্যোগের এই সময়ে প্রয়োজন সবার ঐক্যবদ্ধ প্রয়াস। এ কথা আমরা বারবার বলেছি। আমরা এ কথাও বলেছি যে, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটি যাতে অপপ্রয়োগ না হয়। সে ব্যাপারে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সতর্ক থাকবে। যারা অপপ্রয়োগ করবে, তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এ সময় বিএনপির সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘মির্জা ফখরুল ইসলামের মন্তব্য দেশের রাজনৈতিক সমাজ ও গণসমাজের নামে বিভ্রান্তি তৈরির অপকৌশল মাত্র। সরকারের সমালোচনার নামে রাজনৈতিক এজেন্ডা বাস্তবায়নের হীন কৌশল অবলম্বন করেছে বিএনপি।’

সরকারের পাশাপাশি দলের পক্ষ থেকে এক কোটি পরিবারকে সহায়তা করা হয়েছে বলেও জানান আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় এ পর্যন্ত দেশে চার কোটি মানুষের মধ্যে নগদ অর্থ ও ত্রাণ সহায়তা দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া দলীয় সভানেত্রীর নির্দেশে সারা দেশে দলের নেতাকর্মীরা প্রায় এক কোটি পরিবারের মধ্যে খাদ্য সহায়তা ও নগদ সহায়তা প্রদান করেছে।’

প্রবাসীদের প্রতি প্রযোজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিশ্বে প্রায় এক কোটি ২০ লাখ প্রবাসী বাঙালি রয়েছে, তাদের অধিকাংশই কর্মহীন হয়ে পড়েছে। এবং অনেকেই ঝুঁকিতে রয়েছে। এ ব্যাপারে আমাদের দূতাবাসগুলোকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য নির্দেশনা দিতে পারে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।’

সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘এ ছাড়া দেশে প্রবাসী পরিবারগুলো, যারা অসহায় অবস্থায় পড়েছে, এই পরিবারগুলোর তালিকা তৈরি করে সরকারি-বেসরকারিভাবে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেওয়া প্রয়োজন, মানবিকভাবে প্রয়োজন।’

পরিবহন-সংশ্লিষ্ট শ্রমিকদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘পরিবহন শ্রমিকদের এই সংকটকালে প্রধানমন্ত্রী প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়ার পরও ঢাকাসহ বেশ কিছু এলাকায় সংশ্লিষ্টরা দায়িত্ব পালন করেননি, পাশে দাঁড়াননি। কাজেই এই দুঃসময়ে পরিবহন শ্রমিকদের তালিকা অনুযায়ী সহায়তা করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি।