ঠাকুরগাঁও প্রথম ধাপে পৌর নির্বাচনে পাশকার্ড পেতে সাংবাদিকদের হয়রানি নির্বাচন অফিসারের র্দূব্যবহার

জয় মহন্ত অলক, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁও প্রথম ধাপে পৌর নির্বাচনে পাশকার্ড পেতে সাংবাদিকদের হয়রানি ও নির্বাচন অফিসারের র্দূব্যবহার অভিযোগে তুলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন জেলার সংবাদকর্মীরা। জেলার সংবাদকর্মীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে জানায়,

প্রথম ধাপে জেলার পীরগঞ্জ উপজেলায় পৌর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামীকাল ২৮ ডিসেম্বর। সরকারের নির্দেশনা অনুয়ায়ী সংবাদকর্মীদের নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানে কর্মরত কাগজপত্র জমা দিয়ে পাশকার্ড নেয়ার কথা বললেও অজ্ঞাত কারনে জেলা নির্বাচন অফিসার তা দিতে তালবাহানা করছে।

জেলা নির্বাচন অফিসার কথা অনুয়ায়ী জেলার গুরুত্বপূর্ন মিডিয়ায় সংবাদকর্মীরা শহরের নির্বাচন অফিসে কাগজপত্র জমা দিলেও এখন নয় পরে দিচ্ছি এভাবে তালবাহানা করছে। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে জেলার সংবাদকর্মীরা। বাংলাদেশ প্রতিদিন ও নিউজ টুয়েন্টি ফোরের জেলা প্রতিনিধি আব্দুল লতিফ লিটু,

মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের বদরুল ইসলাম বিপ্লব, সময় টেলিভিশনের জিয়াউর রহমান বকুল, একুশে টেলিভিশনের জসিম উদ্দিন, একাত্তর টেলিভিশনের আবু তোরাব মানিক, চ্যানেল এস টেলিভিশনের জয় মহন্ত অলক, জিটিভি’র এমদাদুল হক ভুট্টু, চ্যানেল আাই’র এটিএম শামসুজ্জোহা, বাংলাদেশ টেলিভিশনের মাসুদ রানাসহ সংবাদকর্মীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন,

এই প্রথম পাশকার্ড পেতে হয়রানীর শিকার হতে হচ্ছে। এখনো পর্যন্ত কার্ড দেয়নি জেলা নির্বাচন অফিসার। শুধু তাই নয় নির্বাচন অফিসার সংবাদকর্মীদের সাথে র্দূব্যবহার করেছেন যা কাম্য নয়। জেলা নির্বাচন অফিসার জিলহাস উদ্দিন জানান,

আমি অনেক কাজে ব্যস্ত রয়েছি। আমি কি কার্ড নিয়ে পরে থাকবো। সময় পেলে দিবো বলে তিনি এ বিষয়ে আর কোন কথা বলতে রাজি হয়নি। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক ড. কেএম কামরুজ্জামান সেলিম জানান, পাশ কার্ড দেয়ার বিষয়টি আমার নয়। এ বিষয়ে জেলা নির্বাচন অফিসার ভাল জানেন।