টঙ্গীতে হাসপাতালের ব্যবহার করা মাস্ক-হ্যান্ড গ্ল্যাভস শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে বিক্রি আটক দুই

মোঃআল-আমিন টঙ্গী(গাজীপুর প্রতিনিধি): গাজীপুরের টঙ্গীতে হাসপাতালের ব্যবহৃত মাস্ক ও হ্যান্ড গ্ল্যাভস শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে আবার বিক্রি করার অভিযোগে মো.আহালিয়া (৩৭) ও মো.ইমরান (২৭)নামের দুজনকে আটক করেছে টঙ্গী পূর্ব থানা পুলিশ।

তবে মূল অভিযুক্ত ব্যক্তি নাসির পলাতক রয়েছেন। গোপালগন্জের সদরের আব্দুল আলিমের বড় ছেলে নাসির দীর্ঘদিন যাবৎ টঙ্গীতে দোকান নিয়ে লন্ড্রী করে আসছে। দেশে করোনা আতঙ্ক শুরু হলে বাজারে মাক্সের দাম বেড়ে যায়।

এই সুযোগে অধিক মুনাফা অর্জনের জন্য লন্ড্রী কাজ বাদ দিয়ে নাছির রাজধানীর উত্তরা, টঙ্গী ও গাজীপুরের কয়েকটি হাসপাতালের ব্যবহার করে ফেলে দেওয়া পরিত্যক্ত মাস্ক সংগ্রহ করে তা নিজের ভাড়া করা বাসা বাড়িতে এনে, মেয়াদ উত্তীর্ণ শ্যাম্পু দিয়ে ধুঁয়ে আয়রন করে তা স্থানীয় ভ্রাম্যমান বিক্রেতা দ্বারা বিক্রি করে আসছে।

হঠাৎ কাপড় লন্ড্রী বাদ দিয়ে মাক্স লন্ড্রী করার এমন দৃশ্য দেখে স্থানীয়দের মাঝে সন্দেহ সৃষ্টি হয়।খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে বিষয়টি টঙ্গী পূর্ব থানার নজরে আসে।বিষয়টির সত্যতা জানতে গিয়ে কেঁচো খুঁড়তে সাপ বেড়িয়ে আসে।

এসময় নাসিরের লন্ড্রী দোকান ও বসোবাসের ঘর থেকে ব্যবহার করা বিপুল পরিমান মাস্ক ও হ্যান্ড গ্ল্যাভসের সন্ধান পায় পুলিশ। স্থানীয়রা জানান,দেশে করোনা ভাইরাসের খবর ছড়িয়ে পড়লে মাক্স ও হ্যান্ডগ্লাবসের চাহিদা বেড়ে যায়।

এই সুযোগে নাসির অধিক মুনাফার লোভে অনৈতিক এ ব্যবসায় জড়িয়ে পরে। টঙ্গী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শুভ মন্ডল জানায়, কিছুদিন যাবৎ এমন ব্যবসা দেখে স্থানীয়দের মাঝে চাঞ্চল্যের সৃস্টি হয়।

বিষয়টি টঙ্গী পূর্ব থানার কাছাকাছি হওয়ায় পুলিশকে খবর দিলে গতকাল পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে বিপুল পরিমানে রক্তমাখা মাস্ক ও হ্যান্ড গ্লাভস উদ্ধার করে। এ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অপরাধে পুলিশ বাড়ির ম্যানেজার ও আয়রনম্যানসহ দু‘জনকে আটক করে।

পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মুলহোতা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়।তাকে আটক করতে পুলিশের অভিযান চলছে। এ বিষয়ে টঙ্গী পূর্ব থানার ওসি (অপারেশন) শুব্রত পোদ্দার জানান, স্থানীয়দের খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে দু‘জনকে আটক করা হয়েছে।

তবে, ঘটনার সাথে জড়িতদের আটক করতে অভিযান চলছে। এ নিয়ে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।