জিয়াউর রহমানের খেতাব বাতিল করা হলে জনগণ তা মেনে নেবে না: ফখরুল

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, জিয়াউর রহমানের অবদানকে অস্বীকার করা মানে স্বাধীনতাকেই অস্বীকার করা। দেশের স্বাধীনতায় অবদান রাখা জাতীয় নেতাদের অবদানকে অবশ্যই স্বীকৃতি দিতে হবে। একইভাবে জিয়াউর রহমানের অবদানকেও স্বীকার করতে হবে।

শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে গণমাধ্যমের সম্পাদক ও মিডিয়া ব্যক্তিত্বদের সঙ্গে গুলশানে হোটেল লেকশোরে বিএনপির মতবিনিময় সভায় এ কথা বলেন তিনি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘কারও দয়ায় নয়, মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদান রাখার জন্যই খেতাব পেয়েছিলেন জিয়াউর রহমান। তার খেতাব বাতিল করা হলে, জনগণ তা মেনে নেবে না।’

ফখরুল ইসলাম আরও বলেন, স্বাধীনতা কোনো গোষ্ঠী, দল বা ব্যক্তির সম্পত্তি নয়, এটি জনগণের সম্পত্তি। ‘বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের গুরুত্ব অস্বীকার করার কিছু নেই। কিন্তু জিয়াউর রহমানের ঘোষণার গুরুত্বও স্বীকার করতে হবে।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের গুরুত্ব অস্বীকার করার কিছু নেই। কিন্তু জিয়াউর রহমানের ঘোষণার গুরুত্বও স্বীকার করতে হবে।

অনুষ্ঠানে বিএনপির বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, কারো খেতাব বাতিল করার এখতিয়ার জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের নেই।