জামালপুরে যমুনা নদীর পানি কমতে শুরু করেছে, তবে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত আছে

মো: শামীম হোসেন, জামালপুর জেলা প্রতিনিধি: বন্যা দুর্গত মানুষের খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে, সেই সাথে পালের পশুর খাবার না থাকায় দুশ্চিন্তা বেড়ে গেছে কৃষকের। গত ২৪ ঘন্টায় যমুনার পানি ১৬সেন্টিমিটার কমে রবিবার সকালে যমুনার পানি বাহাদুরাবাদ ঘাট পয়েন্টে বিপৎসীমার ৪৪সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

বন্যার পানি কমতে থাকলেও পৌরসভগুলো সহ ৪৯টি ইউনিয়ন জলে নিমজ্জিত হয়ে আছে, পানিতে তলিয়েছে বির্স্তিণ ফসলের মাঠ, গ্রামের পর গ্রাম । বন্যার পানিতে ডুবে আছে ছোট বড় কাঁচা পাকা সড়কের প্রায় ৩শত কিলোমিটার । বর্তমানে কিছু সড়কে পানি সরে গেলেও বড় বড় খানা খন্দের সৃষ্টি হয়ে চলাচলে অনুপোযোগী হয়ে পরেছে। বন্যার এবং করোনার কারনে র্দীঘ দিন থেকে কর্মহীন হয়ে বসে আছে অসংখ্যা মানুষ দিন যত গড়াচ্ছে খাবারের সংকট বাড়ছে।

তবে বন্যার শুরুর দিকে সামান্য কিছু পরিবার সরকারী বরাদ্দ করোনা কালীন খাদ্য সহায়তা পেলেও বন্যায় ত্রাণ বিতরণ ধীর গতিতে চলছে। সরকারী তথ্যমতে, জামালপুরে বন্যার পানিতে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে ৮৫ হাজার৭৪৭টি পরিবারে ৩ লাখ ৯৬ হাজার ৭৯৭ হাজার মানুষ । ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে ৩৯১টি গ্রামের ৬হাজার ৬৬২টি ঘর বাড়ি। জেলা ত্রাণ ও পূর্নবাসন কর্মকর্তা মোঃ নায়েব আলী জানান,

বন্যা কবলিত এলাকায় নতুন করে ৫৩৪ মেট্রিকটন চাল ও নগদ ১৩লাখ ৫০হাজার টাকা ও দুই হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার বরাদ্দ করা হয়েছে । আরো ত্রানের বরাদ্দ চেয়ে মন্ত্রনালয়ে আবেদন পাঠানো হয়েছে ।