জগন্নাথপুরে ভাইরাল ফিভার জ্বরের প্রকোপে ছড়িয়েছে করোনা আতঙ্ক

মোঃ আলী হোসেন খান, জগন্নাথপুর প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে এবার জ্বরের প্রকোপ ব্যাপক হচ্ছে জগন্নাথপুরে। ভাইরাসজনিত এ জ্বরের (ভাইরাল ফিভার) কবলে কাতরাচ্ছে শিশু থেকে বৃদ্ধ-সকল বয়সের মানুষই। এদিকে, ভাইরাসজনিত এ জ্বর অনেকের ভেতরে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে করোনা।

তবে এতে আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। স্থানীয় হাতপাতাল সূত্র জানায়, প্রতিদিন জগন্নাথপুরের বিভিন্ন গ্রাম থেকে, হাসপাতালে রোগীরা ভর্তি হচ্ছেন ভাইরাল ফিভারে আক্রান্ত হয়ে। তাদের শরীরে সবসময়ই জ্বর থাকছে এক শ’র উপরে।

এছাড়াও মাথা ও শরীর ব্যথা রয়েছে শরীরে। অনেকের আবার সার্দি-কাশিও। এবারের ভাইরাস জনিত জ্বর মানুষকে বেশি ভোগাচ্ছে। বিগত বছরগুলোতে দেখা গেছে-ভাইরাস জ্বর ৪-৫ দিনে সেরে গেলেও এবারে রোগীকে বিছানায় ফেলে রাখছে ১০-১২ দিন।

এ ধরণের রোগীদের প্রচুর পানি পান করা এবং বিশ্রামে থাকার পরামর্শ জরুরী। এছাড়া তিনি বলেন, তাদের হাসপাতালে প্রতিদিন অনেক লোকই ভাইরাল ফিভারে আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হচ্ছেন। তাপমাত্রার উঠানামা এবং সিজনাল কারণে এটা হচ্ছে।

সাধারণ রোগীদের প্যারাসিটামল, সর্দি থাকলে এন্টি হিস্টামিন খাওয়াতে হবে। তবে বেশি কাশি এবং শ্বাসকষ্টসহ অন্য কোনো ধরণের জটিলতা থাকলে ওই রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করা উচিত বলে মনে করেন ডাঃ মধু সুধন ধর। এদিকে, স্থানীয় একাধিক উপজেলা সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, জগন্নাথপুর সকল এলাকায় ব্যাপক হারে বাড়ছে ভাইরাস জ্বরের প্রকোপ।

প্রতিটা ঘরের কেউ না কেউ আক্রান্ত হয়ে পড়েছেন এ জ্বরে। আবার অনেক ঘরের একাধিক সদস্য আক্রান্ত। অনেকে এই ভাইরাস জ্বর নিয়ে হাসপাতালমুখি হচ্ছেন না করোনা আতঙ্কে। তারা মনে করছেন, হাসপাতালে গেলেই নানা ধরণের টেস্টসহ অযথা হয়রানী করা হবে রোগীদের। তাই ঘরে বিশ্রাম নিয়ে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ সেবন করছেন তারা।

জগন্নাথপুর উপজেলা সাস্হ্য কমপ্লেক্সের পরিবার পরিক্লপনা কর্মকর্তা ডাঃ মধু সুধন ধর জানান, তাপমাত্রার উঠা-নামা, হঠাৎ গরম ও হঠাৎ ঠান্ডা লাগা এবং সর্বোপরি সিজনাল (ঋতু পরিবর্তন জনিত) কারণে দেখা দিয়েছে এই ভাইরাস ডাক্তারের পরামর্শে চললে অল্প দিনের মধ্যে হলে সুস্থ হওয়া সম্ভব।