জগন্নাথপুরে খাল-বিল থেকে হারিয়ে যাচ্ছে শাপলা ফুলের ও ঢ্যাপ

মোঃ আলী হোসেন খান, জগন্নাথপুর প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে এক সময় প্রত্যন্ত হাওরাঞ্চলের খাল বিলে দেখা যেত শাফলা ফুল । লাল কিংবা সাদা শাপলা ফুলের সৌন্দর্যের দৃশ্য কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে।

সময়ের বিবর্তনে হাওর খালবিলে পলিজমে হাওর খালবিল শুকিয়ে প্রায় হারিয়ে যেতে বসেছে এই চিরচেনা জাতীয় শাপলা ফুল। শুধু নয় এর সাথে সম্পৃক্ত জলাভূমির ফল স্থানীয়দের ভাষায় ঢ্যাপ প্রায় বিপন্নের পথে। জগন্নাথপুর উপজেলার হাওরাঞ্চলের হাটবাজার গুলোতে মাঝেমধ্যে ঢ্যাপ বিক্রি করতে দেখা যেত এখন তেমনটা চোখে পড়েই না।

শাপলা ফুল সাধারণত হাওরে খালে বিলে জন্মে থাকে। সাদা ও লাল রঙের দুই ধরনের প্রচুর দেখা মিলতো। স্থানীয়দের কাছে সাদা শাপলা সাদা জলফল এবং লাল শাপলা কে লাল বা রক্ত জলফল হিসাবেই পরিচিত। এই হাওরাঞ্চলের আবদ্ধ জলাশয়ে যখন একসঙ্গে অনেকগুলো শাপলা ফুল ফুটতো তখন ওই জলাশয় এক অপরূপ সৌন্দর্য সৃষ্টি হত। শুধু তাই নয় এ ফুল হতেই স্থানীয়দের এক সুস্বাদু ফলে রূপান্তরিত হত, স্থানীয়দের কাছে যাহা ঢ্যাপ বলেই পরিচিত।

এই ঢ্যাপের ভেতরে অনেক ছোট ছোট বীজ থাকে, ঢ্যাপ পাকাপোক্ত হলে এ অঞ্চলের মানুষ উঠিয়ে নিয়ে ভেঙে রোদে শুকিয়ে খই ভেজে থাকতো। এ খই স্থানীয়দের কাছে খুবি সুস্বাদু লাগতো। জানা যায়, শাপলা বর্ষার পর থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত ক্রমান্বয়ে জন্মে ও ফুল ফুটে থাকে। ধীরেধীরে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও বাঁধ ভেঙে পলি জমে ভরাট হয়ে যাচ্ছে।

এছাড়াও বৈজ্ঞানিক বিভিন্ন পদ্ধতি ব্যবহার করে মাছ ও ফসল চাষ করায় শাপলা জন্মানোর ক্ষেত্র গুলো ধীরেধীরে নষ্ট হয়ে যেতে বসেছে। এক সময় হাওরাঞ্চলের গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর ডাঁটার তরকারির বিরাট অংশ এই শাফলা। শুধু তাই নয় এই শাফলা ফুল হতে জন্মানো ঢ্যাপ মানুষের বদহজম এবং রক্ত আমাশয় নিরাময়ের জন্য বেশ কার্যকরী বলেও প্রচলিত রয়েছে গ্রামে।

কিন্তু কালের বিবর্তনে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর চিরচেনা এই শাপলা ফল`বা ঢ্যাপ প্রকৃতি থেকে বিলুপ্তির পথে। নলুয়া হাওর পিঙলা হাওর মইয়া হাওর পাড়ের একাধিক প্রবীণ মুরব্বিদের সাথে আলাপচারিতায় জানাযায় হাওরাঞ্চলে এখন স্বল্প পরিসরে শাপলা হয়। তাই পূর্বের মতো মানুষ শাফলার ডাঁটা ও ঢ্যাপ সংগ্রহ করতে পারেনি। ভবিষ্যতে হয়তোবা এই চিরচেনা শাপলা হারিয়ে যেতে পারে।

উপজেলার চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়নের রসুলপুর গ্রামের বাসিন্দা সাব্বির আহমদ বলেন, এক সময় এই প্রত্যন্ত হাওরাঞ্চলে শ্রমজীবী মানুষেরা অভাবে ছিলো তখন তারা শাফলার ঢ্যাপ দিয়ে খই বানিয়ে খেতে দেখা যেতো। কিন্তু এখন আর সেই চিরচেনা শাপলা দেখাই যায়না। তিনি বলেন, শুধু শাপলাই নয় আমাদের গ্রামের পাশের বিলে পদ্মা ফুল জন্মাতো।

তিনি আর বলেন, আমাদের এ অঞ্চলে অনেক খালবিল ডুবা ডাবা ছিল এসব খাল-বিলে প্রচুর পরিমাণ শাপলা ফুল ফুটতো, এতে প্রচুর পরিমাণ ঢ্যাপ পাওয়া যেতো। কিন্তু আস্তে আস্তে এসব খাল-বিল ভরাট হয়ে যাচ্ছে। এছাড়াও জমিতে অধিক মাত্রায় কীটনাশক ব্যবহার, জলবায়ু পরিবর্তন নিয়মবহির্ভূত বিভিন্ন কারনে প্রাকৃতিক জলাভূমিগুলো ধ্বংসের পথে এর সাথে সুস্বাদু ঢ্যাও বিলুপ্তির পথে বলে তাদের ধারণা।